রাজনীতি

প্রধানমন্ত্রী কি বিধাতা যে তার বিরুদ্ধে কথা বলা যাবে না: মির্জা ফখরুল

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘রাজবাড়ীতে একজন মহিলা নেত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুইটা বাচ্চা আছে তার। কি অপরাধ? অপরাধ হচ্ছে সে সামাজিক মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়েছে, শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে লিখেছে।’
নয়া পল্টনের বিএনপির কার্যালয়ের সামনে শোক র‌্যালির আগে বক্তব্য দেন মির্জা ফখরুল। ছবি: সংগৃহীত

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, 'রাজবাড়ীতে একজন মহিলা নেত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুইটা বাচ্চা আছে তার। কী অপরাধ? অপরাধ হচ্ছে তিনি সামাজিক মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়েছেন, শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে লিখেছেন।'

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, 'আপনি কি গড, বিধাতা, যে আপনার বিরুদ্ধে কথা বলা যাবে না। গণতান্ত্রিক দেশে যে-কারো সমালোচনা করার অধিকার আছে প্রত্যেকটি মানুষের। আমাদের বোনটি সেই কাজ করেছেন। এদের অত্যাচারের মাত্রা এমন জায়গায় গেছে যে তারা ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে একজন নারীকে পর্যন্ত গভীর রাতে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসে।'

বৃহস্পতিবার বিকালে নয়া পল্টনের কার্যালয়ের সামনে শোক র‌্যালির আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব এই মন্তব্য করেন।

জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও সম্প্রতি পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নেতা-কর্মীদের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই শোক র‌্যালি হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, 'এই সরকার একে তো ভয়াবহ স্বৈরাচারে রূপ নিয়েছে, আমাদের ঘরে ঘরে গিয়ে পুলিশ নাম নিচ্ছে। আজকে এরকম একটা কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে, এরকম একটা ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করেছে এই সরকার।'

'এই সরকারকে আর সময় দেওয়া যায় না। তারা এখন জাতির জন্যে বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাকে অবিলম্বে অপসারণ করতে হবে।'

তিনি বলেন, 'আজকে এই দেশের মানুষ জেগে উঠেছে, তরুণ-যুবকেরা জেগে উঠেছে। এই স্বৈরাচারী সরকারের পতনের মিছিলে প্রতিদিন মানুষ বাড়ছে। আমরা অনেক রক্ত দিয়েছি, আমরা আরও রক্ত দেবো।'

'আমরা সামনে দিকে এগিয়ে যাব, পেছনে ফিরব না। এই সরকারকে বাধ্য করব নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে। সংসদ বিলুপ্ত করে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের মধ্য দিয়ে জনগণের ভোটে নতুন পার্লামেন্ট গঠন করে নতুন সরকার গঠন করা হবে। জনগণের সরকার গঠন করা হবে।'

শোক র‍্যালিটি নয়া পল্টন থেকে কাকরাইলের নাইটিঙ্গেল মোড় হয়ে নয়া পল্টনের সড়ক দিয়ে আরামবাগ মোড় ঘুরে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। বিএনপির নেতা-কর্মীরা কালো পতাকা হাতে শোক র‍্যালিতে অংশ নেন।

Comments