রাজনীতি

২০১৪ ভোটারবিহীন, ২০১৮ সালে রাতে ভোট, আগামী নির্বাচন নিয়েও উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা আছে: ড. কামাল

‘আজকে জনগণের ঐক্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন।’
dr kamal hossain
ড. কামাল হোসেন। স্টার ফাইল ছবি

আসন্ন জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহনমূলক করার স্বার্থে অবিলম্বে সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপে বসার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় তিনি এই আহ্বান জানান।

ড. কামাল হোসেন বলেন, '২০১৪ সালে ভোটারবিহীন একতরফা নির্বাচন হয়েছে, ২০১৮ সালে দিনের ভোট রাতে হয়েছে। এমতাবস্থায় আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে জাতি চরম উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহনমূলক করার স্বার্থে অবিলম্বে সব রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসার জন্য আমি সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।'

চলমান সংকট উত্তরণে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার গঠন, গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনসহ ৬ দফা প্রস্তাব উপস্থাপন করেন তিনি।

সেগুলো হচ্ছে—রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচনকালীন নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকার গঠন; নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন; সব রাজনৈতিক দলের সভা-সমাবেশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা ও তাদের নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখতে বাধা না দেওয়া; সব দলের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা; বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা সব মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার করা এবং নির্বাচনে দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থা করা।

সভায় ড. কামাল হোসেনের ৩ পৃষ্ঠার লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দলের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান।

পরে মঞ্চে বসা ড. কামাল হোসেন নেতাকর্মীদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, 'এই অনুষ্ঠান সফল করার জন্য আপনারা কষ্ট করে এসেছেন, এজন্য আমি সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, অভিনন্দন জানাচ্ছি। আজকে জনগণের ঐক্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। দেশে আমাদের যে লক্ষ্যগুলো আছে, সেগুলোকে অর্জন করতে হলে এই ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। আমার একটাই আবেদন, আমরা সবাই মিলে জাতীয় ঐক্যের জন্য কাজ করি। ঐক্যবদ্ধ হয়েই আমরা আমাদের লক্ষ্য অর্জন করতে পারব। সবাই ঐক্যের জন্য কাজ করে যাই।'

'গণফোরাম জনগণের মালিকানা ও জনগণের ঐক্যে বিশ্বাসী এবং দেশে প্রকৃত গণতন্ত্র কায়েম করতে বদ্ধপরিকর। এদেশ কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর নয়, আপনার-আমার সকলের। আসুন আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সোচ্চার হয়ে সব জনসাধারণের সাংবিধানিক দাবি আদায়ের জন্য এক যোগে কাজ করি এবং অপরাজিত ও কালো টাকা, দুর্নীতিকে চিরতরে উৎপাটন করি এবং একত্রে দেশ গড়ে তুলি', বলেন তিনি।

জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে গণফোরামের ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়। গণসংগীত দিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুরু হয়।

২০২১ সালে নেতৃত্বে মতপার্থক্যে আলাদা আলাদা জাতীয় কাউন্সিল করে গণফোরাম দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। একভাগের নেতৃত্বে ড. কামাল হোসেন, আর অন্যভাগে রয়েছেন মোস্তফা মোহসীন মন্টু।

ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইয়াসিনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় দলের সভাপতি পরিষদ সদস্য মফিজুল ইসলাম খান কামাল, এসএম আলতাফ হোসেন, মোকাব্বির খান, মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, আবদুর রহমান জাহাঙ্গীর, মোশতাক আহমেদ, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, শাহ মো. নুরুজ্জামান, মাহফুজুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Comments