কিছু লোক লাশের ওপর দিয়ে ক্ষমতায় যেতে চায়: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের এই অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা যেন কেউ বন্ধ করতে না পারে, সেটাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।
কিছু লোক লাশের ওপর দিয়ে ক্ষমতায় যেতে চায়: প্রধানমন্ত্রী
আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা | ছবি: বাসস

কিছু লোক লাশের ওপর দিয়ে ক্ষমতায় যেতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা সেনানিবাসের আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'যারা জনগণকে হত্যা করে লাশের ওপরে পাড়া দিয়ে ক্ষমতায় যাবার চিন্তা করে তাদের মতো অমানবিকতা আমি আর কোথাও দেখি না।'

তিনি বলেন, জনগণের জন্য যদি কাজ করতে হয়, তাহলে জনগণকে হত্যা করে, লাশের ওপরে পাড়া দিয়ে ক্ষমতায় যাবার যারা চিন্তা করে, তাদের মতো অমানবিকতা আমি আর কোথাও দেখি না। এটা আমাদেরকে কাছে ভাবতেও অবাক লাগে। কাজেই আমরা শান্তি চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষ যখন একটু শান্তিতে ছিল, স্বস্তিতে ছিল, একটু আশার আলো দেখছিল এবং সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল, ঠিক সে সময়ে এই অগ্নি সন্ত্রাস, হরতাল, অবরোধ মানুষের জীবনটাকে আবার ব্যাহত করছে। একটা শংকার মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। এটাই হচ্ছে সব থেকে কষ্টের বিষয়।

শেখ হাসিনা বলেন, এই সাধারণ মানুষকে পুড়িয়ে মারা, বাসে আগুন দেওয়া, রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট করা এটা কী কারণে? আমার কাছে এটা এখনো বোধগম্য নয়।

তিনি বলেন, শান্তি শুধু দেশের অভ্যন্তরে নয়, আঞ্চলিক এবং বিশ্বব্যাপী আমরা শান্তি চাই।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের করা বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমাদের যাত্রা শুরু হবে ২০২৬ সালে। এই যাত্রা যেন আমরা ভালোভাবে করতে পারি সে জন্য ইতোমধ্যে আমরা পরিকল্পনা নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছি। বাংলাদেশের এই অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা যেন কেউ বন্ধ করতে না পারে, সেটাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।

তিনি বলেন, আমরা কারও সাথে যুদ্ধ চাই না, আমরা শান্তিতে বাস করতে চাই। কিন্তু আমার দেশকে বহিঃশত্রুর আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য, আমাদের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করার জন্য যেন যথাযথ প্রস্তুতি আমাদের থাকে, সেটাই আমাদের সব সময় মনে রাখতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০৪১ সাল নাগাদ স্মার্ট বাংলাদেশ আমরা গড়ে তুলবো। আমাদের ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়া শিখে দক্ষ জনগোষ্ঠী হিসেবে গড়ে উঠবে। অর্থাৎ স্মার্ট পপুলেশন, স্মার্ট গভমেন্ট, স্মার্ট ইকোনমি এবং স্মার্ট সোসাইটি। ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা এভাবেই বাংলাদেশকে গড়ে তুলবো এবং এগিয়ে নিয়ে যাব।

Comments