বিচিত্র দিবস

আজ দাদা-নানা দিবস

আমাদের খুব কাছের মানুষদের অন্যতম দাদা ও নানা। শৈশবের অনেকটা সময় কাটে তাদের সঙ্গে। বলতে গেলে আমাদের শৈশবকে রঙিন করে তোলেন এই দু’জন। আজ তাদের প্রতি সম্মান দেখানোর দিন, ভালোবাসার দিন। কারণ, ২২ জানুয়ারি দাদা-নানা দিবস বা গ্রান্ডপা’স ডে।
আজ দাদা-নানা দিবস

আমাদের খুব কাছের মানুষদের অন্যতম দাদা ও নানা। শৈশবের অনেকটা সময় কাটে তাদের সঙ্গে। বলতে গেলে আমাদের শৈশবকে রঙিন করে তোলেন এই দু'জন। আজ তাদের প্রতি সম্মান দেখানোর দিন, ভালোবাসার দিন। কারণ, ২২ জানুয়ারি দাদা-নানা দিবস বা গ্রান্ডপা'স ডে।

যদিও দাদা ও নানাকে ভালোবাসতে অথবা সম্মান জানাতে কোনো উপলক্ষ বা দিবসের প্রয়োজন হয় না। তবুও, ২২ জানুয়ারি দাদা-নানা দিবস পালন করা হয়। শুরুতে পোল্যান্ডে দিবসটির উদযাপন শুরু হলেও বর্তমানে অনেক দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। ১৯৬৪ সালে 'কোবিয়েটা ই জেসি' ২১ জানুয়ারি দাদি-নানি দিবসের প্রচলন করেন। এরপর দাদা-নানা দিবসের প্রচলন শুরু হয়। যদিও কত সাল থেকে দাদা-নানা দিবসের উদযাপন শুরু হয় সেই তথ্য জানা যায়নি।

দাদা বা নানার সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক সাধারণত অন্য কোনো সম্পর্কের মতো নয়। এই সম্পর্কটা হয় খুবই মধুর এবং দুষ্টু-মিষ্টি। দাদা-নানার সঙ্গে আমাদের দুষ্টুমির শেষ থাকে না। যত আবদার অনায়াসে তাদের কাছে বলা যায়। অনেক না বলা কথাও সহজে বলা যায়।

মা-বাবার শাসন থেকে আমাদের আগলে রাখেন নানা-দাদা। আমাদের রক্ষা করতে তারা মিথ্যা বলতেও পিছপা হন না। এমন দু'জন মানুষকে প্রতিদিনই ভালোবাসা যায়, প্রতি মুহূর্তে সম্মান জানানো যায়। কিন্তু, বর্তমানে আমাদের সবার ব্যস্ততা বেড়েছে। এজন্য ইচ্ছা থাকেও সত্ত্বেও অনেক সময় তাদের খোঁজ নেওয়া সম্ভব হয় না। তাই আজকের দিনটি না হয় তাদের জন্য বরাদ্দ রাখুন। তাদের সঙ্গে সময় কাটান। কিছু উপহার কিনে দিন। অথবা কোথাও ঘুরতে নিয়ে যান।

সময়ের সঙ্গে আমরা বড় হয়ে যাই। প্রিয় মানুষদের সঙ্গেও দূরত্ব বাড়তে থাকে। কিন্তু, কখনো যেন দাদা-নানার কথা ভুলে না যায়।

Comments

The Daily Star  | English

Lifting curfew depends on this Friday

The government may decide to reopen the educational institutions and lift the curfew in most places after Friday as the last weekend saw large-scale violence over the quota-reform protest.

12h ago