আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০২৩

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে অবশেষে জয়ের মুখ দেখল বাংলাদেশ

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে শ্রীলঙ্কাকে হারাল বাংলাদেশ। টানা ছয় হারের পর এবারের বিশ্বকাপে অবশেষে জয়ের মুখ দেখল সাকিব আল হাসানের দল।

লাইভ আপডেট

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে অবশেষে জয়ের মুখ দেখল বাংলাদেশ

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে শ্রীলঙ্কাকে হারাল বাংলাদেশ। টানা ছয় হারের পর এবারের বিশ্বকাপে অবশেষে জয়ের মুখ দেখল সাকিব আল হাসানের দল।
ছবি: এএফপি

ঘটনাবহুল ও নাটকীয় এক লড়াইয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে শ্রীলঙ্কাকে হারাল বাংলাদেশ। টানা ছয় হারের পর ২০২৩ বিশ্বকাপে অবশেষে জয়ের মুখ দেখল সাকিব আল হাসানের দল। এবারের আসরে এটি লাল-সবুজ জার্সিধারীদের দ্বিতীয় জয়। বিশ্বকাপ থেকে লঙ্কানদের বিদায় করে পাওয়া এই জয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আশা বাঁচিয়ে রাখল তারা।

মেহেদী হাসান মিরাজ যখন বিদায় নেন, তখন বাংলাদেশের দরকার ছিল ১১ রান। হাতে কেবল ৩ উইকেট থাকায় কালো মেঘের আনাগোনা দেখা দিয়েছিল। তবে শেষমেশ কোনো বিপদ ঘটেনি। ৫৩ বল হাতে রেখে ২৮০ রানের লক্ষ্য পূরণ করে বাংলাদেশ। তাওহিদ হৃদয় ৭ বলে ১৫ ও তানজিম হাসান সাকিব ৬ বলে ৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

এই জয়ে বিশ্বকাপের পয়েন্ট তালিকার সাতে উঠল বাংলাদেশ। তাদের পয়েন্ট আট ম্যাচে ৪। একই পয়েন্ট হলেও নেট রান রেটের ব্যবধানে শ্রীলঙ্কা ও নেদারল্যান্ডস রয়েছে যথাক্রমে আট ও নয়ে।  তলানিতে থাকা ইংল্যান্ডের পয়েন্ট সাত ম্যাচে ২।

বোলিংয়ে ২ উইকেটের পর ব্যাটিংয়ে ৮২ রানের ইনিংস খেলেন সাকিব। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। ব্যাট হাতে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৯০ রানের ইনিংস খেলেন নাজমুল হোসেন শান্ত এবং বল হাতে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন তানজিম।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৪১.১ ওভারে ২৮২/৭ (তানজিদ ৯, লিটন ২৩, শান্ত ৯০, সাকিব ৮২, মাহমুদউল্লাহ ২২, মুশফিক ১০, তাওহিদ ১৫*, মিরাজ ৩, তানজিম ৫*; মাদুশাঙ্কা ৩/৬৯, থিকশানা ২/৪৪, রাজিথা ০/৪৭, চামিরা ০/৫৪, ম্যাথিউস ২/৩৯, ধনাঞ্জয়া ০/২০)।

ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে অক্কা মিরাজ

মাহিশ থিকাশানার দ্বিতীয় শিকার হলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ছক্কা মারতে গিয়ে লং-অফে চারিথ আসালাঙ্কার হাতে ক্যাচ দিলেন তিনি। বাংলাদেশ হারাল সপ্তম উইকেট।

মিরাজ আউট হলেন ৫ বলে ৩ রানে। ৪১ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৭ উইকেটে ২৭৮ রান। ক্রিজে আছেন তাওহিদ হৃদয় ৭ বলে ১৫ ও তানজিম হাসান সাকিব ৫ বলে ৫ রানে।

টিকলেন না মাহমুদউল্লাহও

স্পিনার মাহিশ থিকশানা করলেন ১০৩ কিলোমিটার গতির ইয়র্কার। ব্যাটে-বলে সংযোগ ঘটাতে না পেরে স্টাম্প হারালেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ২৩ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ে তিনি বিদায় নিলেন ২২ রান করে।

৩৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬ উইকেটে ২৫৬। ক্রিজে আছেন তাওহিদ হৃদয় ৪ বলে ৬ রান। তার সঙ্গী মাত্রই নামা মেহেদী হাসান মিরাজ। এটাই দলের শেষ স্বীকৃত জুটি।

৪৫ রানের মধ্যে বাংলাদেশের ৪ উইকেট তুলে নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। ফলে সুবিধাজনক অবস্থান থেকে কিছুটা চাপে পড়েছে বাংলাদেশ। শেষ মুহূর্তে তাই নাটকীয়তার আভাস মিলছে দিল্লিতে।

বোল্ড হয়ে ফিরলেন মুশফিক

২৬ বলে ৩৮ রানের সম্ভাবনাময় জুটির ইতি ঘটল। বোল্ড হয়ে ফিরলেন মুশফিকুর রহিম। দিলশান মাদুশাঙ্কা ধরলেন ম্যাচে নিজের তৃতীয় শিকার। ১৩ বলে ১ চারে মুশফিকের রান ১০।

৩৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২৫৫ রান। ক্রিজে আছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ২০ বলে ২২ রানে। তার সঙ্গী মাত্রই নামা তাওহিদ হৃদয়। তার রান ২ বলে ৬।

১২ ওভারে ৫ উইকেট হাতে নিয়ে বাংলাদেশের চাই আর ২৫ রান।

সাকিবের পর শান্তও সেঞ্চুরির আগে ফিরলেন

বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের পর নাজমুল হোসেন শান্তও সেঞ্চুরিবঞ্চিত হলেন। ইনসাইড এজে বোল্ড হলেন শান্ত। তাকে থামতে হলো ৯০ রানে। তার ১০১ বলের ইনিংসে চার ১২টি।

১ রানের ব্যবধানে সাকিবের পর শান্তকেও আউট করলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। তার পরপর দুই ওভারে দুটি উইকেট হারাল বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপে নব্বইয়ের ঘরে আউট হওয়া বাংলাদেশের দ্বিতীয় ব্যাটার শান্ত। তার আগে এই তালিকায় ছিলেন কেবল তামিম ইকবাল। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৯৫ রানে আউট হয়েছিল তামিম।

৩৪ ওভার শেষে টাইগারদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২১৬ রান। ক্রিজে আছেন দুই নতুন ব্যাটার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। বাকি ১৬ ওভারে বাংলাদেশের দরকার আর মাত্র ৬৪ রান। হাতে রয়েছে ৬ উইকেট।

ম্যাথিউসের শিকার হয়ে সেঞ্চুরিবঞ্চিত সাকিব

সেঞ্চুরি সুবাস জাগিয়ে ফিরলেন সাকিব আল হাসান। শর্ট মিডউইকেটে তাকে চারিথ আসালাঙ্কার ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে ফেরালেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। শ্রীলঙ্কা অবশেষে ভাঙতে পারল বাংলাদেশের ১৪৯ বলে ১৬৯ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি।

ম্যাথিউসের বলেই ব্যক্তিগত ৭ রানে জীবন পেয়েছিলেন সাকিব। সেবার ক্যাচ ছেড়েছিলেন আসালাঙ্কাই। এরপর সাকিব যখন আউট হলেন, তার নামের পাশে ৮২ রান। ৬৫ বলের আগ্রাসী ইনিংসে তিনি মারলেন ১২ চার ও ২ ছক্কা। তাকে আউট হওয়ার পর অভিনব কায়দায় উদযাপন করলেন ম্যাথিউস। সাকিব মাঠ ছাড়ার সময় তার দিকে তাকিয়ে হাতে সময়ের ইঙ্গিত করে নিজের টাইমড আউটের জবাব দিলেন লঙ্কান অলরাউন্ডার।

বিশ্বকাপে তৃতীয় উইকেটে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জুটি। সবশেষ ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে সাকিব ও মুশফিকুর রহিম মিলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৪২ রানের জুটি গড়েছিলেন।

৩২ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৩ উইকেটে ২১০ রান। ক্রিজে আছেন নাজমুল হোসেন শান্ত ৯৫ বলে ৮৯ রানে। তিনি সেঞ্চুরি করার পথেই আছেন। তার সঙ্গী মাত্রই নামা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

বিশ্বকাপে সাকিবের প্রথম ফিফটি

২০২৩ বিশ্বকাপে সপ্তম ইনিংসে প্রথম হাফসেঞ্চুরি পেলেন সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের অধিনায়ক ব্যক্তিগত মাইলফলকে পৌঁছালেন ৪৭ বলে। আগের ছয় ম্যাচে যথাক্রমে ১৪, ১, ৪০, ১, ৫ ও ৪৩ রান করে আউট হয়েছিলেন তিনি।

দুশমন্থা চামিরার অফ স্টাম্পের বাইরের ভালো লেংথের বলে ড্রাইভ করার চেষ্টা করলেন বাঁহাতি সাকিব। ছন্দের খোঁজে থাকা তারকার ব্যাটের বাইরের কানায় লেগে বল চলে গেল সীমানার বাইরে। পূরণ হয়ে গেল হাফসেঞ্চুরি, যা পেয়ে নিশ্চিতভাবেই স্বস্তি বোধ করছেন তিনি।

২৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ২ উইকেটে ১৬১। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে এখন সুবিধাজনক অবস্থানে আছে টাইগাররা। ক্রিজে সাকিব ৪৭ বলে ৫১ ও নাজমুল হোসেন শান্ত ৭৬ বলে ৭১ রানে ব্যাট করছেন।

শান্ত-সাকিবের ব্যাটে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম শতরানের জুটি

২৩তম ওভারের প্রথম বলে নাজমুল হোসেন শান্ত ও সাকিব হাসানের জুটির রান স্পর্শ করল শতক, ৯৫ বলে। ২০২৩ বিশ্বকাপে এটিই বাংলাদেশের প্রথম শতরানের জুটি। ৪১ রানের মধ্যে তানজিদ হাসান তামিম ও লিটন দাসের বিদায়ের পর হাল ধরেছেন দুজন।

ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ২ উইকেটে ১৪৭। শান্ত ৬৯ বলে ৬৪ ও সাকিব ৪২ বলে ৪৪ রানে ক্রিজে আছেন। বাকি ২৭ ওভারে জয়ের জন্য ১৩৩ রান চাই দলের। হাতে রয়েছে ৮ উইকেট।

বিশ্বকাপে শান্তর দ্বিতীয় ফিফটি

ব্যর্থতার ধারার ইতি টেনে এবারের বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি পেলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে পুল করে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করার পরের বলে আরেকটি চার মারেন তিনি। তিনি ব্যক্তিগত মাইলফলকে পৌঁছালেন ৫৮ বলে।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ফিফটি করেছিলেন শান্ত। এরপর টানা ছয় ইনিংসে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি তিনি। বাঁহাতি এই ব্যাটার আউট হন যথাক্রমে ০, ৭, ৮, ০, ৯ ও ৪ রানে। এদিন দিলেন ফর্মে ফেরার আভাস।

২১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৩৩ রান। শান্ত ৬২ বলে ৫৭ ও অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ৩৭ বলে ৩৭ রানে খেলছেন।

বাংলাদেশের একশ

৮.২ ওভারে দলীয় পঞ্চাশ পূর্ণ করেছিল বাংলাদেশ। তাদের দলীয় শতরান এলো ১৭.১ ওভারে। প্রথম পঞ্চাশের আগে ২ উইকেটের পতন হলেও পরের পঞ্চাশ টাইগাররা করল কোনো উইকেট না হারিয়ে। ২৮০ রানের লক্ষ্য ছোঁয়ার পথে দলকে শক্ত ভিত গড়ার দায়িত্ব নিয়ে সাবলীল ঢঙে খেলছেন নাজমুল হোসেন শান্ত সাকিব আল হাসান।

সাকিব-শান্তর জুটিতে পঞ্চাশ

উইকেটের খোঁজে থাকা শ্রীলঙ্কা আক্রমণে ফেরাল দিলশান মাদুশাঙ্কাকে। তার করা ১৭তম ওভারের তৃতীয় বলটি পুল করে সীমানার বাইরে পাঠালেন নাজমুল হোসেন শান্ত। এতে পূর্ণ হয়ে গেল সাকিব আল হাসানের সঙ্গে তার জুটির ফিফটি।

৪১ রানে ২ উইকেট পড়ার পর শান্ত ও সাকিবের জুটিতে চাপ সামলে নিচ্ছে বাংলাদেশ। তাদের জুটিতে পঞ্চাশ এলো ৬১ বলে। ১৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ২ উইকেটে ৯৭। ক্রিজে শান্ত আছেন ৪৫ বলে ৩০ রানে। অধিনায়ক সাকিব খেলছেন ৩০ বলে ২৮ রানে।

ম্যাথিউসের বলে সাকিবের ক্যাচ ফেললেন আসালাঙ্কা

বোলিং আক্রমণে এসেই সাকিব আল হাসানের উইকেট পেতে পারতেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। কিন্তু এক্সট্রা কভারে ক্যাচ তালুবন্দি করতে পারলেন না চারিথ আসালাঙ্কা। ব্যক্তিগত ৭ রানে বেঁচে গেলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক।

কিছুটা শর্ট লেংথের বল ক্রিজ থেকে বেরিয়ে মারতে গেলেন সাকিব। টাইমিংয়ে গড়বড় হওয়ায় উঠল ক্যাচ। কিন্তু ভাগ্য সহায় থাকায় আরেকটি জীবন পেলেন বাঁহাতি ব্যাটার। ১১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৬১ রান। সাকিব ১৫ বলে ৮ ও নাজমুল হোসেন শান্ত ২৪ বলে ১৭ রানে খেলছেন।

সুযোগ কাজে লাগাতে পারলেন না লিটন

ব্যক্তিগত ৬ রানে জীবন পাওয়া লিটন দাস সুযোগ কাজে লাগাতে পারলেন না। তাকে ফিরিয়ে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা পেসার দিলশান মাদুশাঙ্কা ধরলেন দ্বিতীয় শিকার। আরও একবার উইকেটের উৎসবে মাতল শ্রীলঙ্কা।

মাদুশাঙ্কার বলেই শট খেলার সময় তৃতীয় ওভারে পায়ে ব্যথা পেয়েছিলেন লিটন। অস্বস্তি নিয়ে ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ হলেন তিনি। আগের ওভারেই অবশ্য কাসুন রাজিথাকে টানা দুটি ছক্কা মেরেছিলেন। কিন্তু মাদুশাঙ্কার ইয়র্কার ঠেকাতে সময়মতো ব্যাট নামাতে পারলেন না। বল তার বুটে লাগার পর লঙ্কানদের এলবিডব্লিউয়ের আবেদনে সাড়া দিলেন আম্পায়ার। ২২ বলে ২৩ রানে আউট হলেন লিটন। তার ইনিংসে চার ও ছক্কা দুটি করে।

৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ২ উইকেটে ৪৩। ২৮০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় তারা রয়েছে চাপে। নাজমুল হোসেন শান্ত ১২ বলে ৭ ও অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ৩ বলে ১ রানে ক্রিজে আছেন।

জীবন পেলেন লিটন

তানজিদ হাসান তামিমকে ফেরানোর তিন বল পরই লিটন দাসকে বিদায় করার সম্ভাবনা জাগিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। দিলশান মাদুশাঙ্কার বল পুল করলেন লিটন। ক্যাচ উঠল ডিপ ফাইন লেগে। কিন্তু কুসল পেরেরা সামনে ডাইভ দিয়েও তা হাতে জমাতে পারলেন না। উল্টো হয়ে গেল চার।

ব্যক্তিগত ৬ রানে বেঁচে গেলেন লিটন। তিন ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ২১ রান। ক্রিজে লিটনের সঙ্গী নাজমুল হোসেন শান্ত।

শুরুতেই তানজিদকে হারাল বাংলাদেশ

দিলশান মাদুশাঙ্কার করা ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ দুই বলে টানা চার মারলেন তানজিদ হাসান তামিম। তবে শ্রীলঙ্কার বাঁহাতি পেসার নিজের পরের ওভারে ফিরেই নিলেন প্রতিশোধ। অফ স্টাম্পের বাইরের বল দূর থেকে খেলার চেষ্টায় হাওয়ায় ভাসালেন তানজিদ। অনেক উঁচুতে ওঠা ক্যাচ কভারে সহজেই লুফে নিলেন পাথুম নিসাঙ্কা।

আরও একবার ব্যর্থ হলেন তরুণ বাঁহাতি ওপেনার তানজিদ। বিশ্বকাপে এই নিয়ে খেলা আট ইনিংসে তার ফিফটি কেবল একটি। ২ চারে ৫ বলে ৯ রান করে বিদায় নিলেন তিনি। ১৭ রানে প্রথম উইকেট পড়ল বাংলাদেশের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৪৯.৩ ওভারে ২৭৯ (নিসাঙ্কা ৪১, পেরেরা ৪, মেন্ডিস ১৯, সামারাবিক্রমা ৪১, আসালাঙ্কা ১০৮, ম্যাথিউস ০, ধনাঞ্জয়া ৩৪, থিকশানা ২২, চামিরা ৪, রাজিথা ০, মাদুশাঙ্কা ০*; শরিফুল ২/৫২, তাসকিন ০/৩৯, তানজিম ৩/৮০, সাকিব ২/৫৭, মিরাজ ১/৪৯)।

২৭৯ রানে অলআউট শ্রীলঙ্কা

অবশেষে ঘটনাবহুল ইনিংসের সমাপ্তি হয়েছে শ্রীলঙ্কার। দুশমন্থা চামিরাকে রানআউট করে শ্রীলঙ্কাকে অলআউট করে দিয়েছে বাংলাদেশ। শরিফুল ইসলামের শেষ ওভারের তৃতীয় বলে পুল করেছিলেন দিলশান মাদুশাঙ্কা। কিন্তু মিস করেন। এরপরও রান নিতে চেয়েছিলেন। তবে মুশফিকুর রহিমের সরাসরি থ্রোতে চামিরা আউট হলে গুটিয়ে গেছে লঙ্কানরা।

এর আগে অবশ্য লড়াকু পুঁজিই মিলেছে শ্রীলঙ্কার। সেটার কৃতিত্ব চারিথ আসালাঙ্কার। অসাধারণ ব্যাটিংয়ে তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। শেষদিকে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার ৩৪ ও মাহিশ থিকশানার ২২ রানে এই পুঁজি পায় দলটি। এর আগে পাথুম নিসাঙ্কা ও সাদিরা সামারাবিক্রমা দুজনই করেন ৪১ রান করে।

দ্রুত রান তুলতে গিয়ে ফিরলেন আসালাঙ্কা-রাজিথা

তানজিম হাসান সাকিবের আগের বলেই স্কয়ার লেগের উপর দিয়ে দারুণ এক ছক্কা হাঁকান। পরের বলে গেলেন আরও একটি মারতে। তবে এবার পয়েন্ট সীমানায় লিটন দাসের হাতে ধরা পড়েছেন এই ব্যাটার। ১০৫ বলে ৬টি চার ও ৫টি ছক্কায় ১০৮ রান করেন তিনি।

এরপর উইকেটে নেমেই রানের গতি বাড়ানোর তাগিদে নেমেছিলেন কাসুন রাজিথা। তানজিমের শেষ বলে সীমানায় লিটন দাসের শিকার হন তিনি। 

৪৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৯ উইকেটে ২৭৮ রান। দুসমান্থা চামিরা ৩ ও দিলসান মাদুশঙ্কা ০ রানে ব্যাটিং করছেন।

আসালাঙ্কার সেঞ্চুরি

সাদিরা সামারাবিক্রমার পর দুর্ভাগ্যজনকভাবে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস যখন টাইমড আউট হয়ে যান তখন বেশ চাপেই ছিল শ্রীলঙ্কা। তখন দলের হাল প্রথমে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা, পরে মহেশ থিকসানাকে নিয়ে ধরেন চারিথ আসালাঙ্কা। অসাধারণ ব্যাটিংয়ে দলের পুঁজি বড় করতে রাখেন কার্যকরী ভূমিকা। নিজেও পৌঁছেছেন ব্যক্তিগত মাইলফলকে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তিনি। ১০১ বলে ৬টি চার ও ৪টি ছক্কায় তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন এই ব্যাটার।

৪৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২৭০ রান। আসালাঙ্কা ১০১ ও দুসমান্থা চামিরা ২ রানে ব্যাটিং করছেন।

থিকসানাকে ফেরালেন শরিফুল

ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে ফিরিয়ে লেজ বের করে এনেছিল টাইগাররা। কিন্তু লেজের ব্যাটার মহেশ থিকসানাও হতাশা উপহার দিচ্ছিলেন তাদের। চারিথ আসালাঙ্কার সঙ্গে ৪৫ রানের জুটি গড়েন তিনি। তবে আরও বড় ক্ষতি করার আগে তাকে ফিরিয়েছেন শরিফুল ইসলাম। তার বলে আপারকাট করতে গেলে থার্ডম্যান সীমানায় ক্যাচ দিয়েছেন অতিরিক্ত ফিল্ডার নাসুম আহমেদের হাতে। ৩১ বলে ৩টি চারের সাহায্যে ২২ রান করেন থিকসানা।

৪৬ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২৫৮ রান। আসালাঙ্কা ৯১ ও দুসমান্থা চামিরা ০ রানে ব্যাটিং করছেন।

ধনাঞ্জয়াকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন মিরাজ

চারিথ আসালাঙ্কার সঙ্গে দারুণ এক জুটিতে শ্রীলঙ্কা দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। তবে এ জুটি ভেঙেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ধনাঞ্জয়াকে ফেলেছেন স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে। তার অফস্টাম্পের বাইরে থাকা বল উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে খেলতে চেয়েছিলেন তিনি। বাঁকের মুখে লাইন মিস করলে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়েন তিনি। প্রথম দফায় স্টাম্প ভাঙতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। বল ধরার আগে স্টাম্পও ভেঙে ফেলেছিলেন তিনি। তবে ঠিক সময়ে স্টাম্প তুলে নিলে বিদায় নিতে হয় ধনাঞ্জয়াকে। ভাঙে ৭৮ রানের জুটি।

৩৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২১৩ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ৬৯ ও মহেশ থিকসানা ০ রানে ব্যাটিং করছেন।

দুইশত রান পূরণ করেছে শ্রীলঙ্কা

১৩৫ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেলা শ্রীলঙ্কা দলের হাল ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে নিয়ে ধরেছেন চারিথ আসালাঙ্কা। এ জুটিতে ব্যাটে এগিয়ে যাচ্ছে দলটি। এরমধ্যেই দলীয় দ্বিশতক তুলে নিয়েছে তারা। ২১৮ বলে এসেছে দলের দুইশত রান।

৩৭ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২০৮ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ৬৮ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৩০ রানে ব্যাটিং করছেন।

আসালাঙ্কা-ধনাঞ্জয়ার জুটির ফিফটি

সাদিরা সামারাবিক্রমার আউটে ধাক্কা খাওয়ার পর আরও বড় ধাক্কা খায় অভিজ্ঞ অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে হারিয়ে। দেরিতে মাঠে ঢুকে কোনো বল না খেলেই টাইমড আউট হয়ে গেছেন এই ব্যাটার। তবে এরপর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে নিয়ে দলের হাল ধরেছেন আসালাঙ্কা। এরমধ্যেই হয়েছে জুটির ফিফটি। ১ বলে আসে ষষ্ঠ উইকেটের পঞ্চাশ রান।

৩৩ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৮৬ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ৬৩ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ১৪ রানে ব্যাটিং করছেন।

চারিথ আসালাঙ্কার ফিফটি

ব্যক্তিগত ফিফটি তুলে নিয়েছেন চারিথ আসালাঙ্কা। তানজিম হাসান সাকিবের বলে বাউন্ডারি মেরে নিজের হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি। ৫৬ বলে নিজের ফিফটি স্পর্শ করেন এই ব্যাটার। দলের বিপদে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে নিয়ে হাল ধরেছেন এই ব্যাটার।

৩১ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৬৯ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ৫২ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৯ রানে ব্যাটিং করছেন।

রিভিউ নিয়ে বাঁচলেন আসালাঙ্কা

দুই ওভার আগে জোড়া ধাক্কা দিয়েছিলেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তাতে বড় চাপে পড়ে যায় লঙ্কানরা। চারিথ আসালাঙ্কার বিরুদ্ধে মেহেদী হাসান মিরাজের করা ২৮তম ওভারের পঞ্চম বলে এলবিডাব্লিউর আবেদনে সাড়া দিয়েছিলেন আম্পায়ার। তবে দ্রুত রিভিউ নেন এই ব্যাটার। রিপ্লেতে দেখা যায় প্যাডে লাগার আগে গ্লাভস ছুঁয়ে যায় বল। ফলে বেঁচে যান তিনি। এ সময়ে ৩৯ রানে ব্যাটিং করছিলেন তিনি।

২৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৫২ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ৪০ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৪ রানে ব্যাটিং করছেন।

টাইমড আউট ম্যাথিউস

দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ব্যাটার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। সেই ব্যাটার মাঠে ঢুকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বল মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত হতে পারলেন না। আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, কোনো ব্যাটার আউট হওয়ার পর পরের ব্যাটারকে দুই মিনিটের মধ্যে মাঠে ঢুকে স্ট্রাইক নিতে হয়। তা না হওয়ায় টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের আবেদনে টাইমড আউট হন ম্যাথিউস। ফলে কোনো বল না খেলেই খালি হাতে ফিরতে হয় তাকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিনিই প্রথম এই ধরনের আউটের শিকার হন।

২৫ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৩৭ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ২৮ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ১ রানে ব্যাটিং করছেন।

সামারাবিক্রমাকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন সাকিব

ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছিল সাদিরা সামারাবিক্রমা ও চারিথ আসালাঙ্কার চতুর্থ উইকেট জুটি। আগের ওভারে জুটির পঞ্চাশ রানও পূরণ হয়। তবে আরও বড় ক্ষতি করার আগে এই সামারাবিক্রমাকে ফিরিয়ে এই জুটি ভেঙেছেন সাকিব। সীমানায় মাহমুদউল্লাহর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে ৪২ বলে ৪১ রান করেছেন সামারাবিক্রমা। ভাঙে ৬৩ রানের জুটি।

সামারাবিক্রমা-আসালাঙ্কা জুটির ফিফটি

দারুণ ব্যাটিংয়ে চাপ থেকে শ্রীলঙ্কাকে টেনে তুলছেন সাদিরা সামারাবিক্রমা ও চারিথ আসালাঙ্কা জুটি। চতুর্থ উইকেটে এরমধ্যেই পঞ্চাশ রান পূরণ করেছেন তারা। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে বাউন্ডারি মেরে জুটি ফিফটি পূরণ করেন সামারাবিক্রমা। ৫৩ বলে এসেছে জুটির পঞ্চাশ রান।

২২ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১২৫ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ২৫ ও সাদিরা সামারাবিক্রমা ৩৩ রানে ব্যাটিং করছেন।

শ্রীলঙ্কার দলীয় শতরান

দলীয় ৭২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়েছিল শ্রীলঙ্কা। তবে সাদিরা সামারাবিক্রমাকে নিয়ে সে চাপ উতরে ওঠার চেষ্টা করছেন চারিথ আসালাঙ্কা। এরমধ্যে দলীয় শতরান পূরণ করেছে দলটি। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে বাউন্ডারি মেরে দলের সেঞ্চুরি পূরণ করেন সামারাবিক্রমা। ১০৬ বলে এসেছে দলের সেঞ্চুরি।

১৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১০৫ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ১৯ ও সাদিরা সামারাবিক্রমা ১৯ রানে ব্যাটিং করছেন।

নিসাঙ্কাকে ফেরালেন তানজিম

কুশল মেন্ডিসকে ফেরনোর পরের ওভারে আরেক সেট ব্যাটার পাথুম নিসাঙ্কাকেও ফিরিয়েছে বাংলাদেশ। তানজিম হাসান সাকিবের অফস্টাম্পের বাইরে বলে খেলতে গিয়ে ইনসাইড-এজ হয়ে ফিরে গেছেন তিনি। ৩৬ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৪১ রান আসে এই ওপেনারের ব্যাট থেকে।

১৩ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৭২ রান। চারিথ আসালাঙ্কা ০ ও সাদিরা সামারাবিক্রমা ৫ রানে ব্যাটিং করছেন।

মেন্ডিসকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন সাকিব

অধিনায়ক বনাম অধিনায়ক। ১২তম ওভারে বল করতে এসে শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক কুশল মেন্ডিসকে ফিরিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব। শুরুতে দেখেশুনে খেলা মেন্ডিস আগের ওভারে তানজিম হাসান সাকিবকে ছক্কা হাঁকিয়ে খোলস ভাঙার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। পরের ওভারে সাকিবের ফুললেন্থ বলে লংঅন সীমানার উপর দিয়ে ছক্কা হাঁকাতে গিয়েছিলেন। তবে ধরা পড়েছেন শরিফুল ইসলামের হাতে। ৩০ বলে ১টি করে চার ও ছক্কায় ১৯ রান করেন মেন্ডিস।

১২ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ৬৯ রান। পাথুম নিসাঙ্কা ৪১ ও সাদিরা সামারাবিক্রমা ১৮ রানে ব্যাটিং করছেন।

নিসাঙ্কা-মেন্ডিস জুটির পঞ্চাশ

শুরুর ধাক্কা সামলে দারুণভাবে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন পাথুম নিসাঙ্কা ও অধিনায়ক কুশল মেন্ডিস। এরমধেই জুটির পঞ্চাশ রান পূরণ করেছেন তারা। শুরুতে দেখে শুনে খেললেও ধীরে ধীরে খোলস ভাঙছেন মেন্ডিসও। তানজিম হাসান সাকিনের বলে ছক্কা হাঁকিয়েই জুটির ফিফটি স্পর্শ করেন অধিনায়ক।  

১১ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ৬৪ রান। পাথুম নিসাঙ্কা ৩৯ ও কুশল পেন্ডিস ১৮ রানে ব্যাটিং করছেন।

প্রথম পাওয়ার প্লেতেই দলীয় পঞ্চাশ শ্রীলঙ্কার 

শুরুতেই কুশল পেরেরার উইকেট হারিয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে দেখেশুনেই খেলছেন লঙ্কান অধিনায়ক কুশল মেন্ডিস। প্রথম রান নিতে তো খেলেছেন ১৪টি বল। তবে অপর প্রান্তে বেশ আগ্রাসী মেজাজে খেলছেন আরেক ওপেনার পাথুম নিসাঙ্কা। নিয়মিত বাউন্ডারি মেরে রানের চাকা সচল রাখছেন তিনি। প্রথম পাওয়ার প্লের ১০ ওভারের মধ্যেই দলীয় পঞ্চাশ পূরণ করেছে দলটি। 

১০ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ৫২ রান। পাথুম নিসাঙ্কা ৩৯ ও কুশল পেন্ডিস ৭ রানে ব্যাটিং করছেন।

মুশফিকের দারুণ ক্যাচে ফিরলেন পেরেরা

লঙ্কান শিবিরে প্রথম আঘাত হেনেছে বাংলাদেশ। অফস্টাম্পের বাইরে রাখা শরিফুল ইসলামের গুডলেন্থ বলে কিছুটা বাড়তি বাউন্স ছিল। ব্যাটের কানায় লেগে যায় প্রথম স্লিপে। তবে ঝাঁপিয়ে পড়ে এক হাতে সেই ক্যাচ লুফে নেন মুশফিকুর রহিম। ৫ বলে ৪ রান করেন পেরেরা। 

প্রথম ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ৫ রান। পাথুম নিসাঙ্কা ০ ও কুশল পেন্ডিস ০ রানে ব্যাটিং করছেন।

নেই মোস্তাফিজ, একাদশে তানজিম সাকিব

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি পরিবর্তন এনেছে বাংলাদেশ দল। সম্পূর্ণ ফিট না থাকায় এই ম্যাচে খেলছেন না পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। তার জায়গায় আরেক পেসার তানজিম হাসান সাকিবকে দলে নিয়েছে টাইগাররা।

বাংলাদেশ একাদশ

সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), তানজিদ হাসান, লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, তৌহিদ হৃদয়, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, তানজিম হাসান সাকিব ও শরিফুল ইসলাম।

দুটি পরিবর্তন শ্রীলঙ্কার একাদশে

ঘুরের দাঁড়ানোর লক্ষ্যে এদিন একাদশে দুটি পরিবর্তন এনেছে শ্রীলঙ্কা। ফিরেছেন ওপেনার কুশল পেরেরা। ফলে বাদ পড়েছেন দিমুথ করুনারত্নে। এছাড়া ফিরেছেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাও। তাকে জায়গা করে দিতে বাদ পড়েছেন দুসমন্ত চামিরা।

শ্রীলঙ্কা একাদশ

পাথুম নিসাঙ্কা, কুশল পেরেরা, কুশল মেন্ডিস (অধিনায়ক), সাদিরা সামারাবিক্রমা, চারিথ আসালাঙ্কা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ, দুসান হেমন্ত, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাও, মহেশ থিকশানা, কাসুন রাজিথা ও দিলশান মাদুশঙ্কা।

এক পরিবর্তন নিয়ে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির স্বপ্ন ধরে রাখতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিতে হবে বাংলাদেশকে। গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচের টস জিতে নিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। লঙ্কানদের ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তিনি। অর্থাৎ আগে ফিল্ডিং করবে টাইগাররা। শিশিরের কথা মাথায় রেখে চেজ করার সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক।

দুশ্চিন্তায় দিল্লির বায়ুদূষণ

'অত্যন্ত গুরুতর' অবস্থায় পৌঁছে গিয়েছে দিল্লির বাতাসের মান। দুদিন আগেও বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহর ছিল দিল্লি। একিউআই ছিল ৬৪০। তাতে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা দুই দলের অনুশীলনে প্রভাব পড়েছে। এমনকি এই ম্যাচ বাতিল হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে বলেও জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস।

অবশ্য ম্যাচটি নির্বিঘ্নে আয়োজনের জন্যে আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে বিসিসিআই। খেলোয়াড়দের শারীরিক সমস্যা এড়াতে নেওয়া হয়েছে নানা পদক্ষেপ। মাঠে ওয়াটার স্প্রিংকলার বসানো হয়েছে। এয়ার পিউরিফায়ার বসানো হয়েছে ড্রেসিং রুমে। তবে গতকালও অনুশীলন করেনি শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের কিছু ক্রিকেটার করলেও মুখে মাস্ক পরেছিলেন তারা।

এর আগে ২০১৭ সালে ভারতে একটি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে এসে দিল্লিতে এই ধরনের পরিস্থিতির মধ্যেই পড়েছিল শ্রীলঙ্কা। টেস্ট ম্যাচ চলাকালীন শ্রীলঙ্কার কয়েকজন ক্রিকেটার ড্রেসিংরুমে বমি করেন। তখন লঙ্কান দলের কোচিং স্টাফে ছিলেন নিক পোথাস। পোথাস এখন বাংলাদেশের সহকারি কোচ।

তার কাছে সেই সময়ের পরিস্থিতি জেনে সতর্ক থাকার কথা জানালেন হাথুরুসিংহে,  'হ্যাঁ, সে আমাকে পরিস্থিতি বলেছে। আমরা একটু উদ্বিগ্ন। এই কারণে আমরা আমদের অনুশীলন সেশন বাতিল করেছি। আমরা আমাদের এক্সপোজার সীমিত রাখার চেষ্টা করছি, বাইরে যত কম থাকা যায় সেই চেষ্টা করছি। আমাদের অনুশীলন করা দরকার সেই সঙ্গে কন্ডিশনের কথা মাথায় রেখে সতর্কও থাকা দরকার।'

দূষণের কারণে আইসিসির কাছে পরিকল্পনা জানতে চেয়েছিল শ্রীলঙ্কা

দিল্লির বায়ু দূষণ নিয়ে বড় দুশ্চিন্তায় শ্রীলঙ্কান দল। ২০১৭ সালেও ভুগেছিল দলটি। টেস্ট ম্যাচ চলাকালীন ড্রেসিংরুমে বমি করেন বেশ কয়েকজন শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার। এবার বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচের আগে এমন পরিস্থিতি হওয়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে দলটি। আইসিসির কাছে ম্যাচ নিয়ে তাই পরিকল্পনা জানতে চেয়েছিল তারা।

সংবাদ সম্মেলনে শ্রীলঙ্কার ম্যানেজার মাহিন্দা হালাঙ্গোদে বলেছেন, 'আমরা ভেন্যু বদলের অনুরোধ করিনি। আমরা আইসিসি জিজ্ঞেস করেছিলাম কি হচ্ছে। আমরা এখানে এসে দেখলাম বাংলাদেশ অনুশীলন বাতিল করেছে। আমরা তাই জিজ্ঞেস করেছিলাম পরিকল্পনা কি ম্যাচ নিয়ে। আসলে তারা একটা আলোচনা করেছে এবং পরে ফিরে জানালো তারা এরমধ্যে ম্যাচ আয়োজনের জন্য বেশ কিছু জিনিস স্থাপন করেছে।'

বাংলাদেশের লক্ষ্য এখন চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি

সেমি-ফাইনালে স্বপ্ন শেষ অনেক আগেই। তারপরও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচে বড় লক্ষ্য নিয়েই মাঠে নামছে বাংলাদেশ। আগামী চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে যাওয়া করে নেওয়াই লক্ষ্য। কাগজে কলমে সেমির আশা টিকে থাকলেও চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি লক্ষ্য শ্রীলঙ্কারও। কলকাতা পর্ব থেকেই বাংলাদেশ দল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিকেই লক্ষ্য হিসেবে এগিয়েছিল। কিন্তু দুই ম্যাচেই হেরে উল্টো কোণঠাসা দলটি। তাই লঙ্কানদের কাছে হারলে তেমন কোনো আশাই থাকবে না টাইগারদের।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বলেন, 'চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে জায়গা করে নেওয়ার ব্যাপার এখনও আছে। যতটা সম্ভব পয়েন্ট টেবিলের উঁচুতে থেকে শেষ করতে চাই আমরা। কোন দল ওপরে থেকে শেষ করবে, সেটি নির্ধারণে বড় ভূমিকা থাকবে এই ম্যাচের।'

'চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে জায়গা করে নেওয়া খুবই সম্ভব, কারণ এখনও আমরা ভালো দল। এখনও পর্যন্ত আমরা যা দেখিয়েছি, তার চেয়ে ভালো দল আমরা। নিজেদের সেরাটা এখনও খেলতে পারিনি। সেরার ধারেকাছেও নেই আমরা। সেরাটা খেলতে পারলে জয়ের আশা আমরা করি এবং এখনও পর্যন্ত আমরা মনে করি, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে আমরা খেলতে পারব,' যোগ করেন এই কোচ।

Comments