কোটা বাতিলের দাবিতে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ, ১ ঘণ্টা পর যান চলাচল শুরু

এসময় শিক্ষার্থীরা 'কোটা ব্যবস্থা বৈষম্য সৃষ্টি করে না বরং সমতা বিধান করে', 'মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কটাক্ষ চলবে না, চলবে না', 'মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সম্মানহানি করা যাবে না' ইত্যাদি স্লোগান দেন।
ছবি: স্টার

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের দাবিতে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আজ শনিবার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে অবস্থানের পর দুপুর ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক পার করে মহাসড়কে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা।

দুপুর ১২টার দিকে মহাসড়ক থেকে সরে আসে তারা। পরে আরও আধা ঘণ্টা ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয়।

এসময় শিক্ষার্থীরা 'কোটা ব্যবস্থা বৈষম্য সৃষ্টি করে না বরং সমতা বিধান করে', 'মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কটাক্ষ চলবে না, চলবে না', 'মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সম্মানহানি করা যাবে না' ইত্যাদি স্লোগান দেন।

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শাহাবুদ্দিন আহমেদ সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা জানিয়ে বলেন, 'আমি চাই কোটা আন্দোলন সফল হোক। কারণ আমি চাই না কোটা বৈষম্য তৈরি করুক বা কাউকে পিছিয়ে দিক। তাই আমি মুক্তিযোদ্ধা সন্তান হয়েও কোটা সংস্কারের পক্ষে।'

আমানুল্লাহ খান চার দফা দাবি তুলে বলেন, '২০১৮ সালের পরিপত্র বহাল রাখতে হবে। একটা কমিশন গঠন করে সকল প্রকার চাকরিতে যৌক্তিকভাবে সংস্কার করতে হবে এবং কোটা পাওয়া না গেলে মেধা দ্বারা পরিপূর্ণ করতে হবে। একজন শিক্ষার্থী তার পুরো জীবনে একবার কোটা ব্যবহার করবে। এমনকি এটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার ক্ষেত্রেও ব্যবহার করতে পারে।'

এর আগে ৪ জুলাই রাবি শিক্ষার্থীরা ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে এবং কোটা সংস্কারের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে।

Comments