বাংলাদেশ

অভিবাসী শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষায় পর্যবেক্ষণ চায় জাতিসংঘ

জাতিসংঘের বিশেষ দূত সিওভান মুল্লালি অভিবাসী শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষা নিশ্চিতে অভিবাসীকর্মী গ্রহণকারী দেশগুলোর পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে জরুরি মনোযোগ চেয়েছেন।
সিওভান মুল্লালি
জাতিসংঘের বিশেষ দূত সিওভান মুল্লালি আজ বুধবার রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন। ছবি: সংগৃহীত

জাতিসংঘের বিশেষ দূত সিওভান মুল্লালি অভিবাসী শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষা নিশ্চিতে অভিবাসীকর্মী গ্রহণকারী দেশগুলোর পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে জরুরি মনোযোগ চেয়েছেন।

বুধবার বিকেলে ঢাকার একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, 'শ্রমিক অভিবাসনে অনেক মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে। নারীদের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং শ্রমিক হিসেবে তাদের অধিকার রক্ষায় আমাদের আরও বেশি মনোযোগী হওয়া দরকার।'

মুল্লালি নিয়োগ প্রক্রিয়ার সমস্ত পর্যায়ে শক্তিশালী তদারকির ওপর জোর দিয়েছেন। কারা চাকরির সুযোগ দিচ্ছে, আগমনের সময় কী ঘটছে, তাদের সুরক্ষা এবং আর্থিক সমস্যাগুলোর বিষয়েও তিনি জোর দেন।

জাতিসংঘের এই বিশেষজ্ঞ বলেছেন, গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিজ্ঞতার মূল্যে এটি একেবারেই উচিত নয়।

তিনি বলেন, অতিরিক্ত প্রশিক্ষণের সুবিধাসহ নারীদের জন্য নিরাপদ এবং নিয়মিত সুযোগ সম্প্রসারণে এই অবস্থার উন্নতির জন্য পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে।

জাতিসংঘের এই বিশেষজ্ঞ বলেছেন যে আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে গৃহীত দেশগুলোর বাধ্যবাধকতা রয়েছে এবং এটি একেবারেই গুরুত্বপূর্ণ যে নারী অভিবাসী শ্রমিকদের বৈষম্য ছাড়াই কর্মসংস্থানের সুযোগ অব্যাহত রয়েছে।

মুল্লালি বলছিলেন যে কিছু প্রাপক দেশে তারা যে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনগুলো দেখতে পান তা সমাধান করা অপরিহার্য।

বিশেষ করে গৃহকর্মীদের নির্যাতনের বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো খুবই গুরুতর নির্যাতন। 'হ্যাঁ, এটি কাজের একটি চলমান অগ্রাধিকার ক্ষেত্র হয়েছে।'

জাতিসংঘের বিশেষ দূত এ বছরের ৩১ অক্টোবর থেকে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশে তার সরকারি সফরের সময় মানবপাচারের মানবাধিকার সমস্যাগুলোও মূল্যায়ন করেছেন।

তিনি ভুক্তভোগীদের মানবাধিকার নিশ্চিত করা এবং পাচারের কার্যকর প্রতিরোধের প্রধান চ্যালেঞ্জগুলোর প্রতি বিশেষ মনোযোগ আকর্ষণ করেছেন।

প্রধান উদ্বেগের বিষয় ছিল শ্রম অভিবাসন প্রেক্ষাপটে পাচারের ঝুঁকি, সেইসঙ্গে উদ্বাস্তু, আশ্রয়প্রার্থী এবং রাষ্ট্রহীন ব্যক্তিদের ঝুঁকি।

যৌন শোষণের উদ্দেশ্যে পাচার এবং সব ধরনের শোষণের জন্য শিশু পাচারের সঙ্গে সম্পর্কিত উদ্বেগগুলোও পরীক্ষা করা হয়েছিল।

এরমধ্যে জলবায়ু-সম্পর্কিত স্থানচ্যুতি এবং সরাসরি প্রভাবিত ব্যক্তিদের, বিশেষ করে গ্রামীণ অঞ্চলের নারী এবং মেয়েরা ও আদিবাসীদের জন্য ঝুঁকি বৃদ্ধি পাবে।

বিশেষ দূত কক্সবাজার ও সিলেট ভ্রমণ করেন। তিনি সরকারি সংস্থার প্রতিনিধি, জাতিসংঘের কর্মকর্তা, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সুশীল সমাজ সংস্থার প্রতিনিধি এবং ঝুঁকি থেকে বেঁচে থাকা ব্যক্তিদের সঙ্গে দেখা করেছেন।

বিশেষ দূত ২০২৩ সালের জুনে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে তার সফরের একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন উপস্থাপন করবেন।

Comments

The Daily Star  | English

All animal waste cleared in Dhaka south in 10 hrs: DSCC

Dhaka South City Corporation (DSCC) has claimed that 100 percent sacrificial animal waste has been disposed of within approximately 10 hours

3h ago