বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র একই মূল্যবোধে বিশ্বাস করে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র একটি বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ এবং তারা কোনো গঠনমূলক পরামর্শ দিলে বাংলাদেশ তা গ্রহণ করবে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। ফাইল ছবি

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র একটি বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ এবং তারা কোনো গঠনমূলক পরামর্শ দিলে বাংলাদেশ তা গ্রহণ করবে।

মার্কিন কর্মকর্তা ডোনাল্ড লু-এর সফরের আগে শুক্রবার আইপিএস এবং এর অর্থনৈতিক উপাদান সম্পর্কে কথা বলার সময় সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

মোমেন বলেছেন যে, বাংলাদেশ জনগণের কল্যাণের জন্য যা যা প্রয়োজন তা করতে প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, সরকার এখনো ইউএস ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজি (আইপিএস) সম্পর্কিত বিষয়গুলো অধ্যয়ন করছে।

তিনি বলেন, 'এটি এতটা স্বচ্ছ নয়। এটি কীভাবে সুফল বয়ে আনবে তা সেখানে উল্লেখ করা হয়নি। আমরা অধ্যয়ন করছি।'

ব্যুরো অব সাউথ অ্যান্ড সেন্ট্রাল এশিয়ান অ্যাফেয়ার্সের সহকারী সেক্রেটারি অব স্টেট হিসেবে ২০২১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর নিয়োগপ্রাপ্ত ডোনাল্ড লু তার ভারত সফর শেষ করে ১৪ জানুয়ারি বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

মোমেন বলেন, 'আমরা আমাদের বিষয়গুলো তুলে ধরব। বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ভালো সম্পর্ক থাকা খুবই স্বাভাবিক।'

ডোনাল্ড লু জ্বালানি, বাণিজ্য, নিরাপত্তা সহযোগিতা, ধর্মীয় স্বাধীনতা, শ্রম এবং মানবাধিকারসহ বিভিন্ন অগ্রাধিকার নিয়ে বৈঠক করবেন।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মতে, তিনি তাদের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার, অর্থনৈতিক সম্প্রসারণ এবং শ্রম ও মানবাধিকারের বিষয়ে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি শুনতে আলোচনা করতে বাংলাদেশি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং সুশীল সমাজের নেতাদের সঙ্গে দেখা করবেন।

মোমেন বলেন, 'বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র একই মূল্যবোধে বিশ্বাস করে এবং গণতন্ত্র ও মানবাধিকারকে উৎসাহিত করে।'

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা, ন্যায়বিচার ও মানবাধিকার নিশ্চিত করতে ৩০ লাখ প্রাণ বিসর্জন দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে উল্লেখ করে মোমেন বলেন, আমাদের নীতি ও মূল্যবোধ প্রায় একই।

পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, তিনি সহকারী সচিব লু'র সফরকে ২ পক্ষের মধ্যে নিয়মিত কাজের অংশ হিসেবে দেখছেন।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, 'আমরা সার্বিক পরিসরের বিষয় নিয়ে আলোচনা করব, শুধু নির্বাচন ও মানবাধিকার বিষয় নিয়েই আলোচনা হবে না।'

তিনি বলেন, 'এমন অনেক ক্ষেত্র রয়েছে যেখানে বাংলাদেশের কিছু প্রত্যাশা রয়েছে এবং মার্কিন পক্ষের বাংলাদেশ থেকে কিছু প্রত্যাশা থাকতে পারে। 'আমরা খোলাখুলি আলোচনা করব।'

এফএস জানিয়েছে, ইন্দো-প্যাসিফিকের বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, জাপান এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের কৌশল রয়েছে।

মাসুদ বলেন, 'এমন নয় যে আমরা কোনো নির্দিষ্ট গ্রুপে যোগ দিচ্ছি বা না। আমরা বঙ্গোপসাগর এবং এর বাইরে কীভাবে দেখতে চাই তার কিছু উপাদান প্রস্তুত করছি।'

গত সপ্তাহে বাংলাদেশ সফরের সময়, দক্ষিণ এশিয়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনিয়র ডিরেক্টর, ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিল, ইলিন লুবাচার বলেন, ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের একটি বড় অংশ হিসেবে বঙ্গোপসাগরে গুরুত্বপূর্ণ শিপিং লেন এবং সমুদ্রের তলদেশে তার রয়েছে যা এই অঞ্চলের অর্থনীতিকে গতিশীল করে। খাদ্য, জ্বালানি, পণ্য এবং ডেটা।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ এবং এই অঞ্চলের সব দেশের অর্থনৈতিক পরিবেশ ও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য এই লেনগুলো মুক্ত ও উন্মুক্ত থাকা নিশ্চিত করা জরুরি।

তিনি বলেন, উপসাগরও একটি অত্যাবশ্যক বাস্তুতন্ত্র এবং অনেকগুলো ভাগ করা অপ্রচলিত সুরক্ষা সমস্যাগুলোর জন্য একটি মাইক্রোকসম, 'আমরা বিশ্বজুড়ে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবগুলো প্রতিরোধ করার মধ্য দিয়ে খাদ্যের উৎস ধ্বংস করতে পারে এমন অবৈধ, অপ্রতিবেদিত এবং অনিয়ন্ত্রিত মাছ ধরার বিরুদ্ধে লড়াই করছি। এমনকি মানুষ, অস্ত্র ও মাদক পাচারের বিরুদ্ধেও লড়াই করছি।'

'এই চ্যালেঞ্জগুলো একা অতিক্রম করা যায় না, সহযোগিতা প্রয়োজন' উল্লেখ করে তিনি বলেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশ এই চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় কঠোর পরিশ্রম করছে। 'এটি একটি মুক্ত এবং উন্মুক্ত, সংযুক্ত, সমৃদ্ধ, নিরাপদ এবং স্থিতিস্থাপক ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের জন্য আমাদের ভাগ করা দৃষ্টিভঙ্গির অংশ।'

Comments

The Daily Star  | English
Bangladesh economic crisis

We need humility, not hubris, to turn the economy around

While a privileged minority, sitting in their high castles, continue to enjoy a larger and larger share of the fruits of “development,” it is becoming obvious that the vast majority are increasingly struggling.

6h ago