রাজনীতি

পায়ে হেঁটেও মক্কায় যাওয়া যায়: খুলনার পরিবহন মালিকদের উদ্দেশে বিএনপি নেতারা

বিএনপির সমাবেশকে সামনে রেখে খুলনায় বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা হওয়ার ঘটনায় সরকারের ষড়যন্ত্র আছে বলে দাবি করেছেন দলটির নেতারা।
খুলনায় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন। ছবি: স্টার

বিএনপির সমাবেশকে সামনে রেখে খুলনায় বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা হওয়ার ঘটনায় সরকারের ষড়যন্ত্র আছে বলে দাবি করেছেন দলটির নেতারা।

খুলনা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক শফিকুল আলম মনা বলেছেন, 'আমাদের সমাবেশকে কেন্দ্র করে একটি হীন অপচেষ্টা চলছে। যতই বাঁধা-বিপত্তি আসুক, গাড়ি বন্ধ করা হোক, তবুও পায়ে হেঁটে হলেও লক্ষাধিক লোক এই সমাবেশে সমবেত হবেন।'

আজ বুধবার দুপুরে খুলনায় বিএনপির কে ডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

জ্বালানি তেল, চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য বৃদ্ধি, ভোলায় নুরে আলম, আব্দুর রহিম, নারায়ণগঞ্জে শাওন, মুন্সিগঞ্জে শহিদুল ইসলাম শাওন, যশোরে আব্দুল আলিমকে নির্মমভাবে হত্যা, বিএনপির চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং দেশব্যাপী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা-মামলার প্রতিবাদে আগামী ২২ অক্টোবর খুলনায় বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এসময় শফিকুল আলম মনা বলেন, 'চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহের চেয়েও খুলনায় বেশি লোকের সমাগম হবে, এ ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। বিভিন্ন জেলায় আমাদের প্রচার মিছিল হচ্ছে, লিফলেট বিতরণ হচ্ছে, মাইকিং করা হচ্ছে। সব এলাকা থেকে মানুষ আসার জন্য রেডি হয়ে আছেন।'

মনা আরও বলেন, 'সমাবেশ কর্মসূচি সর্বাত্মক সফল করতে নানা প্রস্তুতি চলছে। কেবল খুলনা মহানগর ও জেলায় নয়, লাখো জনতার এই সমাবেশকে সফল করতে সর্বাত্মক প্রয়াস চলছে বিভাগের বাকি ৯ জেলাতেও। সমাবেশস্থল হিসেবে খুলনা শহরের সোনালী ব্যাংক চত্বরকে নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে খুলনা সিটি করপোরেশন থেকে অনুমতি পাওয়া গেছে। এ ছাড়া, সমাবেশে মাইক ব্যবহার ও প্রচারের জন্য অনুমতি দিয়েছে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ।'

সংবাদ সম্মেলনে খুলনা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আমির এজাজ খান বলেন, 'সরকার যতই ষড়যন্ত্র করুক। এই সমাবেশ আটকাতে পারবে না। সেখানে মানুষের জোয়ার হবে। এই বিভাগের মানুষ সাঁতার কেটে হলেও সমাবেশে আসবে।'

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও খুলনা বিভাগীয় গণসমাবেশ বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক শামসুজ্জামান দুদু বলেন, 'আমাদের দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ঘরবন্দি। এদিকে সরকার দেশটাকে লুটেপুটে খাচ্ছে। তাই দেশের মানুষ ফুঁসে উঠেছে। আমরা এই সমাবেশ করছি দেশের মানুষের মুক্তি জন্য। আমাদের দলের মানুষের মুক্তির জন্য।'

'পায়ে হেঁটেও মক্কায় যাওয়া যায়' উল্লেখ করে তিনি পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের প্রতি আহ্বান জানান, তারা যেন বিএনপির এই যৌক্তিক আন্দোলনে কোনো বাধা সৃষ্টি না করেন।

শামসুজ্জামান দুদু বলেন, 'সমাবেশকে সফল করতে না দিতে সরকার নানা ধরনের ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। ইতোমধ্যে যশোর থেকে বিনা পরোয়ানায় আমাদের ৪৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাগেরহাট থেকে ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই আটক আর গ্রেপ্তার খেলা বহু পুরনো। আমরা এতে ভয় পাই না। এসব করে আমাদের সমাবেশ পণ্ড করা যাবে না।'

তিনি আরও বলেন, 'এটা বিভাগীয় সমাবেশ, ১০ জেলার মানুষ হাজির হবেন। তবে সরকারের চাপে পরিবহন মালিক সমিতি বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে। আপনারা জানেন, মানুষ একসময় হেঁটে মক্কায় গিয়ে হজ্ব করতো। আমাদের নেতাকর্মীরা দরকার হলে পায়ে হেঁটে সমাবেশে যোগ দেবেন।'

 

Comments

The Daily Star  | English

Ushering Baishakh with mishty

Most Dhakaites have a sweet tooth. We just cannot do without a sweet end to our meals, be it licking your fingers on Kashmiri mango achar, tomato chutney, or slurping up the daal (lentil soup) mixed with sweet, jujube and tamarind pickle.

2h ago