রাজনীতি

অন্য ধর্মাবলম্বীদের শাস্তি দেওয়ার অধিকার মানুষকে কে দিলো: প্রধানমন্ত্রী

অন্য ধর্মাবলম্বীদের প্রতি সহনশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যারা সত্যিকার অর্থে ইসলামে বিশ্বাস করে তাদের অন্য ধর্মের প্রতিও সহনশীল হতে হবে।’
বক্তব্য রাখছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা | ছবি: টেলিভিশন থেকে নেওয়া

অন্য ধর্মাবলম্বীদের প্রতি সহনশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'যারা সত্যিকার অর্থে ইসলামে বিশ্বাস করে তাদের অন্য ধর্মের প্রতিও সহনশীল হতে হবে।'

তিনি আরও বলেন, 'বাংলাদেশে আমরা চাই সকল ধর্মে সমান অধিকার। যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। শেষ বিচার তো আল্লাহ করবে! বিচারের ভার আল্লাহ মানুষকে দেয়নি।' 

আজ বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এই কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'প্রত্যেক মানুষ যার যার কর্মফল সে ভোগ করবে। আমি অন্যায় করলে আমার কর্মফল আরেকজন ভোগ করবে না। আমাদের কী অধিকার আছে বা মানুষকে কে অধিকার দিলো যে, কে ধর্মে বিশ্বাস করে আর কে করবে না তাকে শাস্তি দিতে হবে, তাকে খুন করতে হবে, তাকে মেরে ফেলতে হবে! জীবন তো আল্লাহ দিয়েছেন। জীবন দেবার মালিক তিনি, নেবার মালিকও তিনি।'

'আমার বাবা-মা, ভাই-বোন সবাইকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা ২ বোন বেঁচে গেছি বিদেশে ছিলাম বলে। ৮১ সালে দেশে ফেরার পর কতবার আমি গুলির সামনে; কখনো বোমা পাতা, কখনো গ্রেনেড হামলা—নানাভাবে আমার ওপর আক্রমণ হয়েছে। বারবার আমি বেঁচে গেছি। আমি তো বিশ্বাস করি, আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিন আমাকে বারবার রক্ষা করেছেন। কারণ আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিন সব সময় মানুষকে কিছু সময় দেন, কিছু কাজ দেন। এটা আমি বিশ্বাস করি, সেই কাজটুকু সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত তিনিই আমাকে রক্ষা করবেন। সেই বিশ্বাস নিয়েই আমি বাংলাদেশে এসেছিলাম, যে বাংলাদেশে আমার বাবা-মা, ভাই-বোনকে যারা হত্যা করেছে, যারা লাশ ফেলে রেখেছিল, কাফন-দাফনটুকু পর্যন্ত করতে দেয়নি, জানাজাটা পড়তে দেয়নি, তারাই কিন্তু ক্ষমতায় ছিল এবং তারা আত্মস্বীকৃত, জোড় গলায় বলেছিল আমরাই খুন করেছিলাম। তারা এই কথাও বলেছিল, কে তাদের বিচার করবে? আল্লাহর ওপর তারা বিশ্বাস রাখেনি,' বলেন শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বলেন, 'জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন খাঁটি মুসলমান ছিলেন এবং জনগণের সেবা করাটাই তিনি সব থেকে বড় কাজ বলে গ্রহণ করেছিলেন। বাঙালি জাতিকে ক্ষুধা দারিদ্র্য থেকে মুক্তি দিয়ে উন্নত জীবন তিনি দিতে চেয়েছিলেন। তিনি রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশের মানুষ যাতে অল্প খরচে হজ ব্রত পালন করতে পারে তাই তিনি 'হিজবুল বাহার' নামে জাহাজ ক্রয় করে হজযাত্রীদের পাঠানো শুরু করেন।'

'জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ১৯৭০ সালে নির্বাচনী ভাষণে তিনি বলেছিলেন, "আমরা ইনসাফের ইসলামে বিশ্বাসী। আমাদের ইসলাম হজরত নবী করিম (সা.) এর ইসলাম, যে ইসলাম জগৎবাসীকে শিক্ষা দিয়েছে ন্যায় ও সুবিচারের অমোঘ মন্ত্র।" আমরা সেই নীতিটাই মেনে চলি,' বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, '৯৬ সালে সরকারে আসার পরে আমরা কিন্তু ইসলামের প্রচার-প্রসার এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কোনো জেলায় অফিস ছিল না, যারা কর্মরত ছিল তারা রাজস্ব খাতে ছিল না। সেই সময় প্রায় ৩৪টি জেলায় অফিস ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরির ব্যবস্থা আমরা করে দেই। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জন্য সুন্দর বিল্ডিং আওয়ামী লীগ সরকারই করে দিয়েছে। বায়তুল মুকাররম মসজিদ সম্প্রসারণ, মিনার তৈরির কাজ আমরা শুরু করেছিলাম। এই কাজে সৌদি বাদশা আমাদের কিছু অনুদান দিয়েছিলেন। দুর্ভাগ্যের বিষয়, কাজটা সম্পন্ন হওয়ার আগেই ২০০১-এ আমরা ক্ষমতা থেকে চলে যাই, তখন বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে সেই কাজ বন্ধ করে দেয়। আল্লাহর রহমতে ২০০৮ সালের নির্বাচনে জনগণ আমাদের ভোট দিয়েছে আওয়ামী লীগকে, আমরা ২০০৯ সাল থেকে সেই কাজ আবার শুরু করি। আজ বায়তুল মুকাররম মসজিদে আরও অধিক সংখ্যক মানুষ নামাজ পড়তে পারে।'

আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পরে ধর্মীয় শিক্ষা বা মাদ্রাসা শিক্ষার যথেষ্ট উন্নতি করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'গত ১৪ বছর ধরে ইসলামের খেদমতে যেসব পদক্ষেপ আমরা নিয়েছে; ঢাকায় আমরা ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছি। কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিস-এর সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি'র স্বীকৃতি দিয়েছি। আমরা আরবি, বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় পবিত্র কোরআনের ডিজিটাল ভার্সন তৈরি করেছি। আমরা জাতীয় শিক্ষা নীতিতে নৈতিক ও ধর্মীয় শিক্ষাকে অন্তর্ভুক্ত করেছি এবং মসজিদভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম আওয়ামী লীগ শুরু করেছে। ধর্মীয় শিক্ষাকে জাতীয় শিক্ষা নীতির অন্তর্ভুক্ত করেছি।'

এ সময় প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সরকারের নেওয়া আরও উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'সামনে রমজান মাস। এই রমজান মাসে আমাদের ব্যবসায়ীরা কিছু আছে, জিনিসের দাম বাড়াতে চেষ্টা করে। এটা অত্যন্ত গর্হীত কাজ। রমজান হচ্ছে কৃচ্ছতা সাধনের সময়, মানুষ যাতে ভালোভাবে তার পবিত্র রমজান পালন করতে পারে বা তার ধর্মীয় কার্যক্রম করতে পারে সেদিকে তো সকলের দৃষ্টি দেওয়া উচিত। সেই সময় এই মুনাফা লোভীদের এই ধরনের জিনিসের দাম বাড়ানো আর মানুষকে বিপদে ফেলার কোনো অর্থ হয় না।'

'যাই হোক, আমরা ইতোমধ্যে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য বিশেষ পারিবারিক কার্ড করে দিয়েছি। আমরা অধিক দামে চাল ক্রয় করে স্বস্তা দামে অর্থাৎ মাত্র ৩০ টাকা কেজিতে সেই চাল বিভিন্ন পরিবারকে দিচ্ছি। এই রমজান মাস সামনে রেখে আমরা আরও প্রায় ১ কোটি মানুষের জন্য ১৫ টাকা কেজি দরে চাল সরবরাহ করব। যারা একেবারে কর্মক্ষম তাদের জন্য বিনা পয়সায় ৩০ কেজি চাল প্রতি মাসে দিয়ে যাচ্ছি। সাধারণ মানুষ যাতে কষ্ট না পায় তার জন্য চাল, তেল, চিনি, ডাল যা যা দরকার টিসিবির মাধ্যমে ন্যায্য মূল্যের কার্ড দিয়ে আমরা এই সহযোগিতা করে যাচ্ছি। করে যাব। তাছাড়া এই সময় মানুষ অনেক সাহযোগিতা করে থাকে। অনেক বিত্তশালী মসজিদ-দুস্থদের টাকা দেন। আমরা তাদেরকে বলবো রমজান মাসে সেই ব্যবস্থাটা করতে,' বলেন তিনি।

খাদ্যে ভেজাল দেওয়া, মজুতদারি, কালোবাজারি, নিত্যপণ্যের সংকট সৃষ্টি; এটা যাতে কেউ করতে না পারে তাই সকলকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

ইমাম-খতিবদের অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, 'জুমার খুতবায় এই ধরনের কাজ যে গর্হীত তা মানুষকে বলা উচিত। তাহলে মানুষের অতিরিক্ত মুনাফা নেওয়ার প্রবণতা নিশ্চয়ই কমবে।'

Comments