রাজনীতি

বিএনপির আন্দোলন বন্ধে লক্ষ্মীপুরে সজীব হত্যা: রিজভী

সজীবকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে সমাবেশে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘সরকার সজীবকে হত্যা করে আমাদের আন্দোলন থামানোর চেষ্টা করেছে। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য এই সরকারই দায়ী।’
রুহুল কবির রিজভী
রুহুল কবির রিজভী। স্টার ফাইল ছবি

লক্ষ্মীপুরে বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচি ঘিরে পুলিশ ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষে কৃষক দলের কর্মী মো. সজিব হোসেন নিহত হওয়ার ঘটনায় রাজধানীতে শোক র‍্যালি করেছে বিএনপি।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে এই র‍্যালি শুরু হয়। বিএনপির নেতাকর্মীরা হাতে কালো ব্যান্ড পরে সমাবেশে অংশ নেন। 

সজীবকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে সমাবেশে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, 'সরকার সজীবকে হত্যা করে আমাদের আন্দোলন থামানোর চেষ্টা করেছে। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য এই সরকারই দায়ী।'

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, 'এ পর্যন্ত ১৯ জন নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছে। শেখ হাসিনা সরকার বিএনপি কর্মীদের টার্গেট করে আমাদের এক দফা দাবির আন্দলন বন্ধ করতে চাইছে।'

ঢাকা উত্তর মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান বলেন, 'শেখ হাসিনার নির্দেশে সজীবকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য বর্তমান সরকারকে দায়ী করা হবে।'

সমাবেশে বিএনপির অন্যান্য সিনিয়র নেতারা সরকারের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন।

সরকার পতনে একদফা দাবিতে আন্দোলনের গত মঙ্গলবার পদযাত্রায় লক্ষ্মীপুরে কৃষক দলের নেতা সজীব হোসেন নিহত হন। এর প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারা দেশে মহানগর ও জেলা পর্যায়ে শোক র‌্যালি কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএনপি। ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে নয়াপল্টন থেকে মগবাজার পর্যন্ত র‍্যালি করবে বিএনপি।

রুহুল কবির রিজভীর ভাষ্য, ২ দিনের পদযাত্রা কর্মসূচিতে বিএনপির ১ জন নিহত, প্রায় ৩ হাজার আহত ও প্রায় ২ হাজারের বেশি নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

বিএনপির কর্মসূচিতে সংঘর্ষের ঘটনায় সারা দেশে মোট ৩১০টি মামলায় প্রায় ১১ হাজারের বেশি নেতাকমীকে আসামি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১ হাজার ৩০০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

 

Comments