সরকার পতনই বিএনপির একমাত্র চাওয়া: মির্জা ফখরুল

সরকার পতনই বিএনপির একমাত্র চাওয়া বলে মন্তব্য করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে লক্ষ্মীপুর থেকে আসা দলের আহত নেতাকর্মীদের এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: সংগৃহীত

সরকার পতনই বিএনপির একমাত্র চাওয়া বলে মন্তব্য করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে লক্ষ্মীপুর থেকে আসা দলের আহত নেতাকর্মীদের এক অনুষ্ঠানে তিনি এই মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, 'দীর্ঘ একযুগের ওপরে আমরা সংগ্রাম করছি, লড়াই করছি এই ফ্যাসিবাদী, কর্তৃত্ববাদী, নিপীড়ন-নির্যাতনকারী সরকারের দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে। আমাদের লক্ষ্য একটাই, আমরা এই ফ্যাসিস্টদের হাত থেকে মুক্তি চাই, দেশ মুক্তি চায়।'

'এজন্য ইতোমধ্যে অনেকে প্রাণ দিয়েছেন, সাধারণ মানুষ প্রাণ দিয়েছেন, অনেক মানুষ গুম হয়ে গেছেন এবং সর্বশেষ ১৮ জুলাই আপনারা (লক্ষ্মীপুরের নেতাকর্মীরা) শান্তিপূর্ণ মিছিল করছিলেন, সেই মিছিলে পুলিশ সরাসরি গুলি করে, আমাদের ভাই সজীব হোসেন প্রাণ হারিয়েছেন, আপনাদের অনেকের চোখ বন্ধ (দৃষ্টি শক্তি হারিয়েছেন) হয়ে গেছে। এখন একটাই চাওয়া, একটাই পথ বা রাস্তা- এদের সরাতে হবে, এদের পতন ঘটাতে হবে', বলেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, 'আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে এই দেশ নিরাপদ না, আপনারা নিরাপদ না, আমরা কেউই নিরাপদ না।'

'আমাদের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য, আমাদের অস্তিত্ব ফিরে পাওয়ার জন্য, এই যে শিশুটি (সামনের সারিতে থাকা সজীব হোসেন সন্তানের দিকে তাকিয়ে) এখানে দাঁড়িয়ে আছে, সে তার পিতাকে হারিয়েছে… যারা মারা গেছে তাদের পরিবার বুঝে কী যন্ত্রণা। আপনাদের এই কষ্ট, এই ত্যাগ কখনো বৃথা যাবে না', বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, 'এই আন্দোলনে দেশের মানুষ আমাদের সঙ্গে আছে। দেশের মানুষ জীবন দিয়ে রাস্তায় নেমেছে। রাস্তায় নেমে এই সরকারকে সরানোর জন্য সংগ্রাম শুরু করেছে।'

'আমরা বিশ্বাস করি যে, এই সরকারকে এ দেশের মানুষ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরাবে এবং জনগণের যে সরকার সেই সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে', যোগ করেন তিনি।

নিহত সজীব হোসেনের পরিবার ও আহত নেতাকর্মীদের পাশে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার দল সবসময় থাকবে বলেও জানান বিএনপি মহাসচিব।

গত ১৮ জুলাই লক্ষ্মীপুরে বিএনপির পথযাত্রায় আওয়ামী লীগের হামলায় কৃষক দলের সজীব হোসেন নিহত এবং পুলিশের গুলিতে ৬ জনের দৃষ্টিশক্তি হারানোর উপক্রম হয়েছে বলে অভিযোগ করে বিএনপি। লক্ষ্মীপুরের আহত সেই নেতাকর্মীদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করতেই এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি বক্তব্য রাখেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান। 

অনুষ্ঠানে দলের পক্ষ থেকে নিহত সজীব হোসেনের পরিবার ও আহত নেতাকর্মীদের আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়।

লক্ষ্মীপুরের সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানির সভাপতিত্বে ও শাহাবুদ্দিন সাবুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবুল খায়ের ভুঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবে রহমান শামীম, কৃষক দলের হাসান জাফির তুহিন, পুলিশের গুলিতে আহত যুবদল কর্মী মোস্তফা কামাল, শ্রমিক দলের ইকবাল হোসেন, কৃষক দলের বোরহান উদ্দিন এবং নিহত সজীবের বাবা আবু তাহের প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ইসমাইল জবিহউল্লাহসহ সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশীদ, সাবেক সংসদ সদস্য এ বি এম আশরাফ উদ্দিন, নাজিম উদ্দিন, কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, লক্ষ্মীপুরের আইনজীবী হাসিবুর রহমান ও বিএলডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম উপস্থিত ছিলেন।

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka getting hotter

Dhaka is now one of the fastest-warming cities in the world, as it has seen a staggering 97 percent rise in the number of days with temperature above 35 degrees Celsius over the last three decades.

6h ago