রাজনীতি

বরিশালে বিএনপির রোডমার্চে হাজারো নেতাকর্মী

‘মেগা প্রকল্পের মাধ্যমে মেগা দুর্নীতি করে কিছু মানুষ বড়লোক হয়ে গেছে’
বরিশালের রোডমার্চে বিএনপির নেতাকর্মীরা। ছবি: টিটু দাস/স্টার

সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ শনিবার সকালে বরিশাল বিভাগের রোডমার্চ শুরু হয়েছে।

সকাল ১১টায় নগরের বঙ্গবন্ধু উদ্যান থেকে শুরু হওয়া রোডমার্চ ঘিরে সকাল থেকেই নেতাকর্মীরা ভিড় শুরু করেন।

দ্য ডেইলি স্টারের সংবাদদাতা জানান, বিভাগের ৪২টি উপজেলা থেকে নৌ ও সড়ক পথে হাজারো নেতাকর্মী উদ্যানে আসেন।

কর্মসূচিতে উপস্থিত আছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও শ্রমিক নেতা নজরুল ইসলাম খান, বিএনপি নেত্রী সেলিমা রহমান, বিএনপির ভাইস প্রেসিডেন্ট শাজাহান ওমর বীর উত্তম, সাবেক মন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরী, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মজিবুর রহমান সারওয়ার, বরিশাল মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান ফারুক, বিভাগীয় সমন্বয়কারী বিলকিস জাহান শিরিন প্রমুখ।

রোডমার্চ সূচনাস্থলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম খান বলেন, 'জিনিসপত্রের মূল্য বৃদ্ধিতে মানুষ অতিষ্ঠ। এসব বিষয়ে কথা বলতে গেলে মায়েদের, শিশুদের এমনকি সাংবাদিকদেরও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে দেশের মানুষকে মুক্ত করতে হবে। সেই লক্ষে বিএনপি এক দফা আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।'

'মেগা প্রকল্পের মাধ্যমে মেগা দুর্নীতি করে কিছু মানুষ বড়লোক হয়ে গেছে। যে শিশু আজ ভূমিষ্ঠ হচ্ছে, সেও এক লাখ টাকা ঋণ নিয়ে জন্মগ্রহণ করছে। এই সংসদ জনগণের ভোটের মাধ্যমে হয় নাই। তাই রোডমার্চের মাধ্যমে আগামী দিনের বড় লক্ষ্য অর্জিত করতে হবে। কেননা কোনো আন্দোলনই বৃথা যায় না', যোগ করেন তিনি।

বরিশালের রোডমার্চে বিএনপির নেতারা। ছবি: টিটু দাস/স্টার

ডেইলি স্টার সংবাদদাতা জানান, কয়েক হাজার পিক আপ, ট্রাক ও বাস ছাড়াও শতাধিক মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল নিয়ে ১০-১৫ হাজার নেতাকর্মী নিয়ে এই রোডমার্চ নগরের বঙ্গবন্ধু উদ্যান থেকে কালিজিরা ব্রিজ হয়ে ঝালকাঠি রাজাপুর হয়ে আজ বিকেল নাগাদ পিরোজপুরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে। সেখানে জনসভায় নেতারা ভাষণ দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে রোডমার্চ শেষ করবেন।

পথে বরিশালের রুপাতলি, কালিজিরা ব্রিজ, ঝালকাঠির ষাটপাইকা, সুতালরি ব্রিজ, রাজাপুর মোড় হয়ে পিরোজপুরের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হবে এই রোডমার্চ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রোডমার্চে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীর হাতে জাতীয় ও বিএনপি দলীয় পতাকা আছে। 'চল চল রোড মার্চ সফল কর' স্লোগান ও 'প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ' সংগীত গাইতে গাইতে নেতাকর্মীরা রোডমার্চ নিয়ে এগিয়ে যায়। সেই সময় রোডমার্চের সূচনাস্থল থেকে প্রায় ৩-৪ কিলোমিটার জুরে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

রোডমার্চে ভোলা থেকে আগত তৃণমূল বিএনপির কর্মী সোহেল জানান, তারা সাবেক এমপি নাজিম উদ্দিন আলমের নেতৃত্বে পাঁচটি মাইক্রোবাস, ১০টি মোটরসাইকেল, আটটি পিকআপ ভ্যান ও তিনটি বাস নিয়ে রোডমার্চে অংশ নিতে এসেছেন।

পটুয়াখালীর দুমকী থেকে আগত দেলোয়ার হোসেন জানান, তারা ২০০টি মোটরসাইকেল নিয়ে রোড মার্চে যোগ দিয়েছেন।

রোডমার্চ শুরু হওয়ার পর বৃষ্টিতে নেতাকর্মীরা ভোগান্তির মধ্যে পড়লেও থেমে থেমে তারা এগিয়ে যান। ফলে নির্ধারিত সময়ের অন্তত দুই ঘণ্টা পর রোডমার্চ বরিশালের কালিজিরা পয়েন্টে পৌঁছায়।

Comments