রাজনীতি

বিএনপি অফিসে নিজেরাই তালা মেরেছে, অফিস খুললে আপত্তি নেই: ডিএমপি কমিশনার

‘যারা এই নৃশংস কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছেন, তারা যেখানেই লুকিয়ে থাক কাউকেই কোনো অবস্থাতেই ছাড় দেওয়া হবে না’
বিএনপি অফিসে নিজেরাই তালা মেরেছে, অফিস খুললে আপত্তি নেই: ডিএমপি কমিশনার
রাজধানী ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়। ছবিটি গতকাল সোমবার তোলা | ছবি: মো. আব্বাস/স্টার

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পুলিশ তালা দেয়নি বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান।

দুর্বৃত্তদের অগ্নি সন্ত্রাসে দগ্ধদের চিকিৎসার খোঁজ নিতে আজ মঙ্গলবার সকালে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আপনারা ২৮ তারিখের পর থেকে নিরাপত্তার খাতিরে বিএনপি কার্যালয় ঘিরে রেখেছেন এবং সেটি এখনো তালাবদ্ধ আছে। এই অবস্থায় একটি রাজনৈতিক কার্যালয় আর কত দিন বন্ধ থাকবে, যেহেতু আর কিছু দিন পরেই তফসিল ঘোষণা করা হবে—গণমাধ্যমকর্মীরা দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, 'বিএনপি কার্যালয়ে তারা নিজেরা তালা মেরে রেখেছে এবং তারা এখন সেখানে আসে না। কেন আসে না, সেটা তারাই ভালো বলতে পারবেন।

'আমাদের পুলিশ সেখানে সব সময়ই থাকে, নিরাপত্তার জন্য; একাবারে ১২ মাস, আল্লাহর ৩০ দিনই কিন্তু সেখানে পুলিশ প্রহরায় থাকে। সেই একইভাবে পুলিশ প্রহরা আছে,' বলেন তিনি।

হাবিবুর রহমান আরও বলেন, 'তারা যদি এখানে অফিস খোলে, কার্যক্রম করে, তাহলে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। আপত্তি কখনোই ছিল না।'

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিএনপি জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবিল রিজভী দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'পুলিশই আমাদের পিয়ন ও স্টাফদের হুমকি দিয়ে বের করে দিয়ে তালা লাগিয়ে দিয়েছে।'

একটি অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে তারা বিএনপি অফিস অবরুদ্ধ করে রেখেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, 'পুলিশই তালা লাগিয়েছে, তাই তাদেরই খুলে দিতে হবে।'

ফায়ার সার্ভিসের তথ্য অনুসারে ১৩ দিনে ৫৫টি গাড়ি পোড়ানো হয়েছে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পর্যাপ্ত উপস্থিতি থাকার পরও—এ ক্ষেত্রে পুলিশ কী ব্যবস্থা নিচ্ছে জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, 'এই অবরোধ কর্মসূচিতে পুলিশ দিন-রাত রাস্তায় আছে, কাজ করে যাচ্ছে। বাসের মালিক-শ্রমিক, স্থানীয় জনগণ আমাদের সহযোগিতা করছে।'

তিনি আরও বলেন, 'আমরা ইতোমধ্যে নির্দেশনা দিয়েছি, যেসব জায়গায় মানুষ বাসে ওঠে এবং বাস থেকে নামে এসব জায়গায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ বাসে উঠে ছবি তুলে রাখছে, ড্রাইভার হেলপাররাও ছবি তুলে রাখছে।'

অগ্নি সন্ত্রাস প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'এই নৃশংসতা যারা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণের সকল প্রক্রিয়া চলমান। ইতোমধ্যে আমরা হাতেনাতে ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি এবং অন্যান্য আরও কয়েকজন গ্রেপ্তারসহ এই অগ্নি সন্ত্রাসের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের ১৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

'যারা এই নৃশংস কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছেন, তারা যেখানেই লুকিয়ে থাক কাউকেই কোনো অবস্থাতেই ছাড় দেওয়া হবে না,' বলেন তিনি।

Comments