জেলায় জেলায় বিএনপির ‘কালো পতাকা মিছিলে’ পুলিশি বাধা, লাঠিচার্জ-আটক

পটুয়াখালীতে পুলিশের লাঠিচার্জে বিএনপির অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। 

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দীদের মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও সংসদ বাতিলের দাবিতে বিএনপির পূর্ব নির্ধারিত কালো পতাকা মিছিল ছিল আজ মঙ্গলবার।

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিএনপির কালো পতাকা মিছিলে পুলিশের বাধা দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এছাড়া, মিছিলে লাঠিচার্জ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের আটকের ঘটনাও ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রাজধানীর উত্তরায় আজ সকালে বিএনপির কালো পতাকা মিছিল থেকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খানকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে পরে ছেড়ে দেওয়া হয়।

সেসময় ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার মো. শাহজাহান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেছিলেন, 'আমরা তাকে কালো পতাকা মিছিল থেকে বিরত থাকতে বলেছি।'

বরিশাল

পুলিশের কারণে বরিশাল নগরীর বেশ কিছু এলাকায় কালো পতাকা মিছিল করা যায়নি বলে অভিযোগ করেছেন বরিশাল মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান ফারুক।

বরিশাল নগরীতে পুলিশের কঠোর অবস্থান। ছবি: টিটু দাস/স্টার

মিছিলের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় বরিশাল মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক রিয়াজ মাহামুদ খান মিল্টন ও কর্মী বেল্লাল হোসেনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

বরিশাল কোতয়ালী থানার ওসি আরিচুল ইসলাম মিছিলে বাধা দেওয়ার অভিযোগ করে দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা আছে।

পটুয়াখালী

কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে পটুয়াখালী শহরে সকাল ১০টার দিকে জেলা বিএনপি কালো পতাকা মিছিল বের করলে পুলিশের বাধার মুখোমুখি হয়।

পুলিশের লাঠিচার্জে বিএনপির অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। 

জেলা বিএনপির সদস্য মজিবুর রহমান টোটন ডেইলি স্টারকে বলেন, 'পুলিশ আমাদের কালো পতাকা মিছিলে লাঠিচার্জ করে। এতে আমাদের প্রায় ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।'

জানতে চাইলে পটুয়াখালী সদর থানার (ওসি) মো. জসিম ডেইলি স্টারকে বলেন, 'বিএনপির কিছু লোক রাস্তা আটকে মিছিল করলে চলাচল ব্যাহত হয়। পরে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ করেনি।'

ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহে বিএনপির কালো পতাকা মিছিলে পুলিশের বাধা। ছবি: সংগৃহীত

ঝিনাইদহে পুলিশের বাধায় পণ্ড হয়েছে বিএনপির কালো পতাকা মিছিল। 

সকালে শহরে জেলা বিএনপি কার্যালয় চত্বরে বিভিন্ন উপজেলা থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দিয়ে সেখানে অবস্থান নেয়। 

মানিকগঞ্জ

মানিকগঞ্জে দুপুর ১২টার দিকে বেউথা এলাকা থেকে বিএনপি মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। পরে নেতাকর্মীরা সেখান থেকে চলে যেতে বাধ্য হয়।

মানিকগঞ্জে বিএনপি মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। ছবি: সংগৃহীত

জেলা বিএনপির সভাপতি আফরোজা খান রিতা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশের বাধা দেওয়ায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি মহানগর শাখার নেতাকর্মীরা জড়ো হতে শুরু করলে পুলিশ বাধা দেয়। 

পুলিশ ব্যানার ছিনিয়ে নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের স্থান ত্যাগের নির্দেশ দেয়।

বিএনপির নারায়ণগঞ্জ মহানগর শাখার আহ্বায়ক শাখাওয়াত হোসেন খান ডেইলি স্টারকে বলেন, 'এই ফ্যাসিবাদী সরকার সবসময় বিরোধী দলকে দমন করতে পুলিশকে ব্যবহার করে।'

 

Comments