যুদ্ধবিরতির আলোচনা শেষ না করে চলে গেলেন ইসরায়েলি প্রতিনিধিরা, রাফাহজুড়ে আতঙ্ক

গাজার দক্ষিণের রাফাহ অঞ্চলে ইসরায়েলের পরিকল্পিত সর্বাত্মক অভিযানের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক মহল থেকে হুশিয়ারি আসলেও ইসরায়েল এই হামলা নিয়ে এগিয়ে যেতে চায়।
রাফাহ সীমান্তে গাজার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনিরা আশ্রয় নিয়েছেন। ছবি: এএফপি
রাফাহ সীমান্তে গাজার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনিরা আশ্রয় নিয়েছেন। ছবি: এএফপি

যুক্তরাষ্ট্র, মিশর, ইসরায়েল ও কাতারের মধ্যে গাজার যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনা শেষে আসেনি কোনো ইতিবাচক ফল। গাজার দক্ষিণের রাফাহ অঞ্চলে ইসরায়েলের পরিকল্পিত সর্বাত্মক অভিযানের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক মহল থেকে হুশিয়ারি আসলেও ইসরায়েল এই হামলা নিয়ে এগিয়ে যেতে চায়।

আজ বুধবার এই তথ্য জানিয়েছে টাইমস অব ইসরায়েল।

আলোচনার প্রথম দুই দিনের ঘটনাগুলো

হামাসের এক সূত্র এএফপিকে জানিয়েছে, তাদের একটি প্রতিনিধি দল আজ বুধবার কায়রোতে মিশর ও কাতারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করার জন্য রওনা হয়েছে। গতকাল ইসরায়েলি প্রতিনিধিরা আলোচনা শেষে নিজ দেশে ফিরে গেছেন। আজ আলোচনার দ্বিতীয় দিন।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও ইসরায়েলের তীব্র সমালোচক রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানও আজ বুধবার মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসির সঙ্গে আলোচনা করার জন্য কায়রো যাবেন।

গতকাল মঙ্গলবার ইসরায়েলের প্রতিনিধি দল আলোচনা শেষে মিশরের রাজধানী কায়রো থেকে দেশের পথে রওনা হয়েছে। কোনো ধরনের যুদ্ধবিরতি চুক্তির বিষয়ে সম্মত না হয়েই দলটি দেশে ফিরে যাচ্ছে। 

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

ইসরায়েলি প্রতিনিধিরা কায়রোতে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর প্রধান উইলিয়াম বার্নস, কাতারের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মেদ বিন আবদুলরাহমান আল-থানি ও মিশরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি চুক্তি নিয়ে আলোচনা করেছেন।

অপর এক কর্মকর্তা জানান, মোসাদ প্রধান ডেভিড বারনিয়া ও শিন বেট পরিচালক রোনেন বার সবার বক্তব্য 'শুনেছেন' কিন্তু তারা নতুন কোনো প্রস্তাব দেননি। 

মিশরের আল-কাহেরা নিউজ এক জ্যেষ্ঠ মিশরীয় কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ইসরায়েলি প্রতিনিধিরা চলে গেলেও সার্বিকভাবে আলোচনা 'ইতিবাচক' এবং তা আরও তিন দিন ধরে চলবে।

মিশরের রাষ্ট্রীয় তথ্য সেবা সংস্থা জানিয়েছে, বৈঠক শেষে এতে অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধিরা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে সমন্বয় ও আলোচনা অব্যাহত রাখার স্বদিচ্ছা প্রকাশ করেন।

বার্নস ও আল-থানির সঙ্গে মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ এল-সিসির আলোচনায় সম্ভাব্য যুদ্ধবিরতি, জিম্মিদের মুক্তি ও আরও ত্রাণ পাঠানো বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, তবে আলোচনার নতুন কোনো দিগন্ত উন্মোচিত হয়নি।

বৈঠক করছেন মিশরের প্রেসিডেন্ট সিসি ও সিআই প্রধান বার্নস। ছবি: এএফপি
বৈঠক করছেন মিশরের প্রেসিডেন্ট সিসি ও সিআই প্রধান বার্নস। ছবি: এএফপি

হামাসের অপর এক কর্মকর্তা এএফপিকে জানান, তারা কায়রো বৈঠকের ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছে, কিন্তু এর মধ্যে 'আগ্রাসন ও যুদ্ধ বন্ধের যেকোনো উদ্যোগ নিয়ে আলোচনা করতে' আগ্রহী।

নতুন চুক্তি নাকচ করলেন নেতানিয়াহু

মোসাদ, শিন বেট ও ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ) জিম্মিদের মুক্ত করার জন্য একটি নতুন চুক্তির খসড়া তৈরি করেছে। কান পাবলিক ব্রডকাস্টারের বরাত দিয়ে টাইমস অব ইসরায়েল এই তথ্য জানিয়েছে ।

তবে এই খসড়া নাকচ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

খসড়া চুক্তির বিস্তারিত জানা যায়নি, তবে কান জানিয়েছে, বারনিয়া, (রোনেন) বার ও মেজর জেনারেল নিতজান আলন এই খসড়া তৈরি করেন।

প্রতিবেদন মতে, নেতানিয়াহুর সঙ্গে এই খসড়া নিয়ে বেশ কয়েকবার আলোচনা হয়। সর্বশেষ সোমবার কায়রো বৈঠকের প্রস্তুতির জন্য আয়োজিত প্রাথমিক বৈঠকে এটা নিয়ে আলোচনা হয়।

নেতানিয়াহু নতুন খসড়া নাকচ করেন এবং প্রতিনিধিদের কায়রো যেয়ে আলোচনা 'শুনে আসার' নির্দেশ দেন। তিনি তাদেরকে নতুন কোনো চিন্তাধারা বা হামাসের দাবির কোনো আনুষ্ঠানিক জবাব না দেওয়ারও নির্দেশ দেন। নেতানিয়াহু এর আগে হামাসের দেওয়া শর্তগুলোকে 'অবাস্তব' বলে অভিহিত করেছেন।

বাম থেকে ডানে: সিআইএ পরিচালক উইলিয়াম বার্নস, মোসাদ পরিচালক ডেভিড বারনিয়া ও কাতারের প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুলরাহমান আল-থানি। কোলাজ ছবি: এএফপি
বাম থেকে ডানে: সিআইএ পরিচালক উইলিয়াম বার্নস, মোসাদ পরিচালক ডেভিড বারনিয়া ও কাতারের প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুলরাহমান আল-থানি। কোলাজ ছবি: এএফপি

জিম্মিদের মুক্ত করার গোয়েন্দা তৎপরতার দায়িত্বে আছেন আলোন। নেতানিয়াহুর এই নির্দেশনার পর তিনি কায়রোর বৈঠকে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন এবং তার সহকারীকে সেখানে পাঠান।

নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক সহযোগী অফির ফালক এই বৈঠকে অংশ নেন।

এক সূত্র জানিয়েছেন, 'স্থায়ীভাবে যুদ্ধ থামানোর দাবি জানিয়েছে হামাস, যা একটি বড় সমস্যা'।

হামাসের দাবির মধ্যে আছে স্থায়ী যুদ্ধবিরতি, গাজা থেকে ইসরায়েলি সেনা প্রত্যাহার, গাজার পুনর্নির্মাণ ও দেড় হাজার ফিলিস্তিনিকে মুক্তি দেওয়া, যাদের মধ্যে 'ইসরায়েলের ভাষায়' জঙ্গি কার্যক্রমের 'নাটের গুরুরা' আছেন। 

যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা

কায়রোর আলোচনায় প্রতিনিধি পাঠানো নিয়ে গড়িমসি করছিল ইসরায়েল, কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের চাপে বাধ্য হয়ে এতে অংশ নেয় দেশটি।

যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, বেসামরিক ব্যক্তিদের সুরক্ষিত রাখার 'গ্রহণযোগ্য পরিকল্পনা' থাকলেই তবে রাফাহর স্থল অভিযানে সমর্থন জানাবে তারা।

সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র গাজায় অন্তত ছয় সপ্তাহ যুদ্ধবিরতি চালু করতে আগ্রহী এবং তিনি মনে করেন, এর মাধ্যমে আরও দীর্ঘ সময় ধরে যুদ্ধবিরতি চালুর পথ সুগম হবে।

রাফাহর লঙ্গড়খানায় বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তনিদের উপচে পড়া ভীড়। ছবি: রয়টার্স
রাফাহর লঙ্গড়খানায় বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তনিদের উপচে পড়া ভীড়। ছবি: রয়টার্স

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, রাফাহর বেসামরিক ব্যক্তিদের 'সুরক্ষিত রাখতে হবে'। তিনি তাদেরকে 'বিপদগ্রস্ত ও ভঙ্গুর' বলে অভিহিত করেন।

তবে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, রাফাহর ভেতর অবস্থানরত হামাসের শেষ ব্যাটালিয়নগুলোকে নিশ্চিহ্ন না করা পর্যন্ত 'পূর্ণ বিজয়' অর্জিত হবে না।

রাফাহ পরিস্থিতি

মধ্যস্থতাকারীরা রাফাহ অঞ্চলে আগ্রাসন ঠেকাতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। এখানে প্রায় ১৪ লাখেরও বেশি বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি আটকা পড়েছেন। যুদ্ধের প্রথম থেকে দক্ষিণ গাজা ও রাফাহকে নিরাপদ অঞ্চল বলে অভিহিত করে ফিলিস্তিনিদের এখানে সরে আসার আহ্বান জানায় ইসরায়েল। কিন্তু এখন সেই তথাকথিত 'নিরাপদ অঞ্চলে' হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে দেশটি। 

গাজায় ত্রাণ সামগ্রী প্রবেশের একমাত্র পথ রাফাহ। জাতিসংঘের সংস্থারা হুশিয়ারি দিয়েছে, এখানে আগ্রাসন শুরু হলে তা মানবিক বিপর্যয়ে রূপ নেবে।

জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা বিষয়ক সংস্থার প্রধান মার্টিন গ্রিফিথস জানান, এই অঞ্চলে যেকোনো সামরিক অভিযানে 'অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারাবে'।

ইসরায়েলি হামলার ঘোষণার পর থেকে রাফাহর আতঙ্কিত বেসামরিক মানুষরা নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে হন্যে হয়ে ঘুরছেন।

আতঙ্কিত ফিলিস্তিনিরা গাজা ছেড়ে যাচ্ছেন। ছবি: রয়টার্স
আতঙ্কিত ফিলিস্তিনিরা গাজা ছেড়ে যাচ্ছেন। ছবি: রয়টার্স

ডানা আবু চাবান নামে এক ফিলিস্তিনি এএফপিকে বলেন, 'আমার তিন সন্তান আহত, আমি কোথায় যাব?'।

এই পরিস্থিতিতে রাফাহ সীমান্তের অপর দিকে অবস্থিত দেশ মিশরের ওপর ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়ার চাপ বাড়ছে।

সীমান্ত এলাকায় অসংখ্য বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি তাঁবু খাটিয়ে বসবাস করছেন। রাফাহ অঞ্চলে সর্বাত্মক হামলা শুরু হলে সবার আগে তারাই বিপদের মুখে পড়বেন। ইতোমধ্যে তারা খাদ্য ও পানির অভাবে হেপাটাইটিস ও ডায়রিয়ার মতো সংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্তের ঝুঁকিতে আছেন।

এখন পর্যন্ত ফিলিস্তিনিদের জন্য রাফাহ সীমান্ত বন্ধ রয়েছে। 

হাবিবা নাখালা বলেন, '১০০ দিন ধরে আমরা তাদেরকে অনুরোধ করেছি আমাদেরকে সীমান্ত পার হতে দিতে, অথবা আমাদেরকে সহায়তা করতে।'

গাজার কিছু বাসিন্দা ইতোমধ্যে সেখান থেকে পালিয়ে গেছেন। আরও অনেকে তাদের নিজ এলাকায় ফিরে যাওয়ার বিষয়ে ভাবছেন। 

আহলাম আবু আসি জানান, তিনি বরং এখানে থেকে 'মারা যাবেন'। গাজা শহরে থেকে যাওয়া আত্মীয়রা দুর্ভিক্ষে কষ্ট পাচ্ছেন বলে তিনি জানান। 

যুদ্ধের সর্বশেষ

কায়রোতে শান্তি আলোচনা চলাকালে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী গাজায় বোমা হামলা অব্যাহত রেখেছে। আজ বুধবার গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে ১০৪ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলি ভূখণ্ডে অতর্কিত হামলা চালায় হামাস। এতে এক হাজার ১৬০ ব্যক্তি নিহত হন। হামাসের হাতে জিম্মি হন প্রায় ২৫০ ব্যক্তি।

তারপর থেকে শুরু হয় ইসরায়েলের সর্বাত্মক হামলা। প্রায় ১৩১ দিন ধরে চলা এই নির্বিচার আগ্রাসনে এখন পর্যন্ত ২৮ হাজার ৪৭৩ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। নিহতদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু। 

এখনো গাজা ১৩০ জন জিম্মি আছেন বলে ধারণা করা হয়।

জিম্মিদের মুক্তি যুদ্ধবিরতির আলোচনার কেন্দ্রে রয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English
The forgotten female footballers of Khulna

The forgotten female footballers of Khulna

Wearing shorts and playing football -- these reasons were enough for some locals to attack under-17 female footballers of Super Queen Football Academy at Tentultala village in Khulna in July last year.

17h ago