তুরস্ক-সিরিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৭০০

তুরস্ক ও সিরিয়ায় শতাব্দীর সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পে সোমবার পর্যন্ত ২ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। বর্তমানে হতাহতদের উদ্ধারকাজ চলছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। 
তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৬০০
ছবি: রয়টার্স

তুরস্ক ও সিরিয়ায় শতাব্দীর সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পে সোমবার পর্যন্ত ২ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। বর্তমানে হতাহতদের উদ্ধারকাজ চলছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। 

৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পের আরও বেশ কয়েকবার মৃদু ভূমিকম্প অনুভূত হয়। 

গৃহযুদ্ধ এবং অন্যান্য সংঘাতের কারণে সিরিয়ার থেকে পালিয়ে তুরস্কের একটি শহরে আশ্রয় নিয়েছিলেন প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। ভূমিকম্পে শহরটি প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে।

উদ্ধারকারীরা ভারি যন্ত্রপাতি এবং খালি হাতে ধ্বংসস্তূপ সরিয়ে বেঁচে থাকা মানুষদের খুঁজছেন। অনেকে ধ্বংসস্তূপের নিচে থেকে সাহায্য প্রার্থনা করছেন। 

তুরস্কের কাহরামানমারাস শহরের একজন প্রতিবেদক মেলিসা সালমান বলেন, 'যেহেতু আমি ভূমিকম্পপ্রবণ অঞ্চলে থাকি, তাই আমি এতে অভ্যস্ত।'

২৩ বছর বয়সী মেলিসা এএফপিকে আরও বলেন, 'তবে এই প্রথম আমরা এ ধরনের ঘটনা দেখছি।'

এপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শত শত মানুষ এখনো ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়ে আছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। উদ্ধারকর্মীরা ওই এলাকার বিভিন্ন শহর ও শহরে ধ্বংসাবশেষের স্তূপে অভিযান চালাচ্ছেন। ফলে, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আজ সোমবার ভোরে তুরস্কের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল ও সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে ৭ দশমিক ৮ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএস জানিয়েছে, সোমবার স্থানীয় সময় ভোর ৪টায় ভূমিকম্পটি তুরস্কের গাজিআন্তাপ প্রদেশের নুরদাগি জেলার ২৩ কিলোমিটার পূর্বে আঘাত হানে। এর গভীরতা ছিল ২৪ দশমিক ১ কিলোমিটার। নুরদাগি অঞ্চলটি তুরস্ক ও সিরিয়ার সীমান্তে অবস্থিত। এ অঞ্চলের বেশ কিছু দেশে ভূকম্পন অনুভূত হয়, যার মধ্যে আছে সিরিয়া, লেবানন ও ইসরায়েল। 

 

Comments