দুর্ঘটনা ও অগ্নিকাণ্ড
সীতাকুণ্ডের অক্সিজেন প্ল্যান্টে বিস্ফোরণ

আইসিইউতে আরও ১ জনের মৃত্যু, নিহত বেড়ে ৭

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টের কম্প্রেসর অপারেটর প্রবেশ লাল শর্মা (৪১) মারা গেছেন।
অক্সিজেন প্ল্যান্ট
বিস্ফোরণে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া অক্সিজেন প্ল্যান্ট। ছবি: রাজিব রায়হান/স্টার

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টের কম্প্রেসর অপারেটর প্রবেশ লাল শর্মা (৪১) মারা গেছেন।

রোববার দিবাগত রাত ১১টা ৩৫ মিনিটের দিকে মারা যান তিনি। 

চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শনিবার সীতাকুণ্ডের কদমরসুল এলাকায় সীমা রি-রোলিং মিলের অক্সিজেন প্ল্যান্টে বিস্ফোরণের ঘটনায় মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন প্রবেশ লাল।

রোববার সকালে অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হলেও তার অবস্থা 'খুবই সংকটাপন্ন' বলে জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা।

২ ছেলেমেয়ের জনক একমাত্র উপার্জনক্ষম প্রবেশ লাল সীতাকুণ্ড উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নের বাসিন্দা ছিলেন। ছেলে এইচএসসির শিক্ষার্থী, মেয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে।

এ নিয়ে এ বিস্ফোরণের ঘটনায় ৭ জন মারা গেলেন। নিহত অপর ৬ জন হলেন-মো. সালাউদ্দিন, শামছুল আলম, ফরিদ, রতন লখরেট, মো. শহীদ ও মো. কাদের।

সীমা রি-রোলিং মিলের অক্সিজেন প্ল্যান্টে এই বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত অন্তত ১৮ জন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তাদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছিলেন চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নুরুল ইসলাম। 

এর মধ্যে, ক্যাজুয়ালিটি বিভাগে ভর্তি ছিলেন ৭ জন, অর্থোপেডিক্স বিভাগে ২ জন, নিউরো সার্জারি বিভাগে ৮ জন ও চক্ষু বিভাগে ৩ জন।

 

Comments