ইভিএমে আঙ্গুলের ছাপ না মিললে যা করতে চায় ইসি

ইভিএমে ভোটারের আঙুলের ছাপ না মিললে সাধারণত নির্বাচন কর্মকর্তারা ডিজিটাল ব্যালট ইউনিট খুলে দিয়ে ভোট প্রদানের ব্যবস্থা করেন। এতদিন পরিপত্র জারি করে এই ক্ষমতা দেওয়া হতো।
ছবি: সংগৃহীত

ইভিএমে ভোটারের আঙুলের ছাপ না মিললে সাধারণত নির্বাচন কর্মকর্তারা ডিজিটাল ব্যালট ইউনিট খুলে দিয়ে ভোট প্রদানের ব্যবস্থা করেন। এতদিন পরিপত্র জারি করে এই ক্ষমতা দেওয়া হতো।

তবে এখন এসব ক্ষেত্রে ভোটকেন্দ্রের সর্বোচ্চ ১ শতাংশ ভোটারের জন্য এই ব্যবস্থা চালুর একটি আইনি ভিত্তি চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

নির্বাচন কর্মকর্তাদের এই ক্ষমতা দিতে ইতোমধ্যে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে (আরপিও) এ সংক্রান্ত বিধান অন্তর্ভুক্ত করতে একটি প্রস্তাবের খসড়া তৈরি করেছে ইসি।

বর্তমানে প্রিসাইডিং অফিসার ও সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারকে ইসি ১ শতাংশ ভোটারের জন্য এই ক্ষমতা দিয়ে থাকে।

আরপিওর জন্য নতুন এই প্রস্তাব পাস হলে এটি একটি আইনি ভিত্তি পাবে।

অভিযোগ আছে, নির্বাচন কর্মকর্তারা কখনো কখনো এই ক্ষমতার অপব্যবহার করেন এবং আঙুলের ছাপ না মিললে একটি ভোটকেন্দ্রে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ভোটারকে ব্যালট ইউনিটের মাধ্যমে ভোট দেওয়ার অনুমতি দেন।

সাম্প্রতিক স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে ইভিএম ব্যবহার করা হয়। অনেক এলাকায় ভোটারদের আঙুলের ছাপ মেলেনি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, বার্ধক্যজনিত কারণে, দুর্ঘটনা বা আঙুলের চামড়া ক্ষতিগ্রস্ত হলে মিল পাওয়া কঠিন হয়।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ইভিএমের কন্ট্রোল ইউনিটের মনিটরে কোনো ভোটারের আঙুলের ছাপ সঠিকভাবে শনাক্ত হলেও, বায়োমেট্রিক ডেটার সঙ্গে মিলছে না। এ কারণে যদি ভোটার ভোট দিতে না পারেন, তাহলে প্রিসাইডিং অফিসার বা সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার তার নিজের আঙুলের ছাপ ব্যবহার করে ব্যালট ইউনিট খুলে দিতে পারেন।

নতুন প্রস্তাবনায় বলা হয়, এভাবে কোনো ভোটকেন্দ্রের মোট ভোটারের সর্বোচ্চ ১ শতাংশকে ভোট দেওয়ার অনুমতি দেওয়া যাবে।

গতকাল সোমবার নির্বাচন কমিশনারদের এক বৈঠকের পর ইসি সচিব হুমায়ুন কবির খন্দকার গণমাধ্যমকে জানান, আরপিওতে পরিবর্তন আনার বিষয়টি আজকের বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে ছিল। কিন্তু কমিশনাররা এ বিষয়ে আরও আলোচনা করবেন বলে তা বাদ দেওয়া হয়েছে।

যোগাযোগ করা হলে নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'যদি কোনো ভোটারের আঙুলের ছাপ বায়োমেট্রিক ডেটার সঙ্গে না মিলে, তাহলে প্রিসাইডিং অফিসার বা সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ওই ভোটারের জন্য ইভিএমের ডিজিটাল ব্যালট ইউনিট খুলে দিতে পারেন। তবে এতে যেন ক্ষমতার অপব্যবহার না হয়, কমিশন তা নিশ্চিত করতে চায়। এটি কীভাবে করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা চলছে। এখনো কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।'

এ বিষয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সেক্রেটারি বদিউল আলম মজুমদার ডেইলি স্টারকে বলেন, 'ইসি এর আগে বলেছিল কর্মকর্তারা ভোটকেন্দ্রের ১ শতাংশ ভোটারের জন্য ব্যালট ইউনিট খুলে দিতে পারবে। তবে, গত সংসদ নির্বাচনে কর্মকর্তারা ২৫ শতাংশ ভোটারদের জন্য ব্যালট ইউনিট খুলে দিয়েছে বলে গণমাধ্যমে সংবাদ এসেছে।'

'কে নিশ্চিত করবে যে নির্বাচন কর্মকর্তারা তাদের ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না, তাদের যে সর্বোচ্চ ১ শতাংশ ভোটারের কথা বলা হলো, তারা যে ১০ শতাংশের ক্ষেত্রে এমন করবেন না, তা কে নিশ্চিত করবে,' প্রশ্ন করেন তিনি।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সর্বোচ্চ ১৫০টি আসনে ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি। যদিও প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো এখনো ইভিএমের বিরুদ্ধে কথা বলছে।

কমিশন গত ১৯ সেপ্টেম্বর নতুন ২ লাখ ইভিএম কিনতে ও সেগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ৮ হাজার ৭১১ কোটি টাকার একটি প্রকল্প প্রস্তাব চূড়ান্ত করেছে। প্রস্তাবটি এখন পরিকল্পনা কমিশনে যাচাই-বাছাই চলছে।

ইসির কাছে বর্তমানে দেড় লাখ ইভিএম আছে যা পরবর্তী নির্বাচনে একসঙ্গে ৭০-৮০টি আসনে ব্যবহার করা যেতে পারে।

 

Comments

The Daily Star  | English

Pm’s India Visit: Dhaka eyes fresh loans from Delhi

India may offer Bangladesh fresh loans under a new framework, as implementation of the projects under the existing loan programme is proving difficult due to some strict loan conditions.

2h ago