আজ বোতাম গণনা দিবস

যে কোনো পোশাকের অন্যতম অংশ বোতাম। আমাদের শার্ট, জ্যাকেট, প্যান্ট এবং পকেটের সঙ্গে বোতাম থাকে। তাই বলতে গেলে বোতামের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক পোশাকের মতোই। কিন্তু, এই ছোট বস্তুটি মোটেও আমাদের কাছে গুরুত্ব পাই না। কিন্তু, যখন শার্টের কোনো বোতাম ছিঁড়ে যায়, তখন বোঝা যায় একটি বোতাম কতটা গুরুত্বপূর্ণ। যাই হোক আজ বোতাম গণনার দিবস বা ‘কাউন্ট ইওর বাটন ডে’। তাই এদিনে আপনার সব শার্টের বা প্যান্টের বোতাম গণনা মজার একটি কাজ হতে পারে।

যে কোনো পোশাকের অন্যতম অংশ বোতাম। আমাদের শার্ট, জ্যাকেট, প্যান্ট এবং পকেটের সঙ্গে বোতাম থাকে। তাই বলতে গেলে বোতামের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক পোশাকের মতোই। কিন্তু, এই ছোট বস্তুটি মোটেও আমাদের কাছে গুরুত্ব পাই না। কিন্তু, যখন শার্টের কোনো বোতাম ছিঁড়ে যায়, তখন বোঝা যায় একটি বোতাম কতটা গুরুত্বপূর্ণ। যাই হোক আজ বোতাম গণনার দিবস বা 'কাউন্ট ইওর বাটন ডে'। তাই এদিনে আপনার সব শার্টের বা প্যান্টের বোতাম গণনা মজার একটি কাজ হতে পারে।

একবার চিন্তা করে দেখুন তো, যদি কখনো বোতাম আবিষ্কার না হতো- তাহলে আমাদের জীবন কতটা কঠিন হয়ে উঠত। আমরা কীভাবে শার্টটি শরীরের সঙ্গে আটকে রাখতাম।

আমরা সবাই জানি, আমাদের প্রতিদিনের ব্যবহৃত পোশাকের সঙ্গে বোতাম থাকে। এই বোতামের একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস আছে। জার্মানিতে ত্রয়োদশ শতাব্দীর কিছু সময় পর্যন্ত বোতাম আবিষ্কার হয়নি। তবে, ১৪ শতকের মধ্যে প্রায় সবখানে ছড়িয়ে পড়ে। তখন থেকেই প্রতিটি নতুন পোশাকের নকশায় জড়িয়ে পড়ে বোতাম। হয়ে ওঠে অবিচ্ছেদ্য অংশ।

কিন্তু, শিল্প বিপ্লবের সময় বোতাম আবার পরিবর্তিত হয়। অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষ পর্যন্ত বেশিরভাগ মানুষ কুটিরশিল্পের মাধ্যমে বাড়িতে অশোধিত বোতাম তৈরি করতেন। কিন্তু যন্ত্রপাতি, পেশাদার নির্মাতা এবং কারখানার আবির্ভাবের সঙ্গে সঙ্গে এগুলো সহজলভ্য হয়ে ওঠে। আর হঠাৎ করে বোতাম সস্তা এবং সর্বব্যাপী হয়ে ওঠে। ফলে যে কেউ বোতামের সুফল পেতে শুরু করে। যেমন- সমাজের শীর্ষে থাকা রাজা থেকে শুরু করে দরিদ্রতম কৃষক পর্যন্ত।

ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে সবচেয়ে জনপ্রিয় ধরনের বোতামটি কালো কাচ দিয়ে তৈরি করা হয়। এই স্টাইলটি রানী ভিক্টোরিয়া তার প্রিয় প্রিন্স অ্যালবার্টের মৃত্যুতে সম্মান জানাতে যে বোতামগুলো পরেছিলেন তার কথা মনে করিয়ে দেয়। ব্যক্তিগত শোকের অনুষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও, ফ্যাশনটি সবার নজরকাড়ে।

বিংশ শতাব্দীতে বোতামের ইতিহাস আবার পরিবর্তিত হয়। ব্যাপক উৎপাদনের অর্থ ছিলো বোতামকে আরও সহজলভ্য করা। তখনই মূলত পোশাকের ওপর বোতামকে আটকে রাখার উপায় সামনে আসে। সেই সময়ে বোতাম এতোটাই ছড়িয়ে পড়ে যে, শ্রমজীবী মানুষের একটি স্বীকৃত প্রতীক হয়ে ওঠে।

তবে, বোতাম কখনো সস্তা ও কদর্য হিসেবে বিবেচিত হয় না। ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হওয়া সত্ত্বেও মানের সংকেত হিসেবে বোতাম এখনো তার মর্যাদা ধরে রেখেছে। এমনকি আজও শীর্ষ ডিজাইনাররা পোশাকের নকশার সময় বোতামের ওপর নির্ভরশীল। দর্জিরা তাদের ক্লায়েন্টদের উচ্চমানের স্যুট নির্দেশ করতে ম্যাট হর্ন বোতাম ব্যবহার করে।

'কাউন্ট ইওর বাটন ডে' উদযাপনের প্রথম এবং সর্বোত্তম পদ্ধতি হলো ঠিক এটিই করা! মানে বোতাম গণনা করা! এটি এমন একটি উপায় যা মূলত নিশ্চিত করবে- আপনার সব শার্ট বা প্যান্টের বোতামগুলো ঠিকঠাক আছে কিনা।

আবার কারো কারো কাছে বোতাম সংগ্রহ ও গণনা একটি শখ। সারা বিশ্ব জুড়ে এমন মানুষ আছেন যারা বিভিন্ন সময়ের বোতাম সংগ্রহ করেন। বোতাম সংগ্রহ করাই তাদের প্রিয় শখ। তারা হাড়ের বোতাম, প্লাস্টিকের বোতাম, ব্রোঞ্জ বোতাম, কাচের বোতাম এমনকি ধাতু ও কাঠের তৈরি বোতাম সংগ্রহ এবং গণনা করেন। তাদের জন্য আজকের দিনটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

আপনি যদি একজন সত্যিকারের বোতামপ্রেমী হন তাহলে আপনি দিনটি উদযাপনে বন্ধুদের সঙ্গে গেট টুগেদার করতে পারতেন। তারপর আপনার সংগ্রহে থাকা বোতামগুলো তাদের দেখাতে পারেন। আবার আপনি চাইলে বোতামের আকারে একটি কেক বানাতে পারেন। তার মাঝখানে থাকবে চারটি ছিদ্র। তাহলে দেখতে বোতামের মতোই লাগবে।

ডে'জ অব দ্য ইয়ার অবলম্বনে

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Where Horror Abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital.

10h ago