বন্দর

সরানো হলো চট্টগ্রাম বন্দর চ্যানেলে আটকা পড়া জাহাজ

বিকেল ৪টার দিকে এটি বন্দর চ্যানেল থেকে সরানো সম্ভব হয়।
টাগ বোটের সাহায্যে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে 'শি জি ফেং'। ছবি: সংগৃহীত

বহির্নোঙর থেকে চট্টগ্রাম বন্দরের মূল জেটিতে যাওয়ার পথে বন্দর চ্যানেলে আটকে পড়া জাহাজটি সরানো হয়েছে।

জাহাজটির স্থানীয় এজেন্ট ট্রাস্ট শিপিং লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রিয়াজ উদ্দিন খান জানান, আজ মঙ্গলবার দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটের দিকে চট্টগ্রাম বোট ক্লাব এলাকার কাছে কর্ণফুলী চ্যানেলে ৫০০ টন স্টিলের কয়েল বহনকারী 'শি জি ফেং' নামে চীনের পতাকাবাহী জাহাজটি আটকে যায়। বিকেল ৪টার দিকে এটি বন্দর চ্যানেল থেকে সরানো সম্ভব হয়।

জাহাজটি আটকে জাওয়ার বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের মেরিন বিভাগের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, 'জাহাজটি বন্দর চ্যানেল দিয়ে বন্দরে ঢোকার সময় টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে এর স্টিয়ারিং লক হয়ে যায়।'

তিনি বলেন, 'এর ফলে জাহাজটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বন্দর চ্যানেলের ডান দিকে যেতে থাকে। সেখানে একটি ভাসমান বয়ার চেইনের সঙ্গে জাহাজের প্রোপেলার আটকে যায়।'

জাহাজটি সরাতে কাজ করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষের চারটি টাগ বোট—কাণ্ডারি-৩, কাণ্ডারি-৪, কাণ্ডারি-৭ ও কাণ্ডারি-১০।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের ওই কর্মকর্তা বলেন, 'জাহাজটির প্রোপেলারে আটকে যাওয়া চেইন কেটে ফেলা হয়েছে এবং টাগ বোটের সাহায্যে এটিকে বহির্নোঙরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।'

তিনি জানান, বহির্নোঙরে জাহাজটির প্রয়োজনীয় মেরামতের কাজ শেষ করে পরবর্তীতে বন্দরে নিয়ে আসা হবে।

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে জেটির ক্ষতি এড়াতে বন্দরের প্রধান জেটি থেকে সমুদ্রের দিকে পাঠানো ১৯টি জাহাজের মধ্যে 'শি জি ফেং' অন্যতম।

রিয়াজ বলেন, 'জাহাজটি ২৫ হাজার টন স্টিলের কয়েল নিয়ে এসেছিল। বন্দরে ২০ হাজার টন খালাসের পর ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বাকি পণ্য নিয়েই জেটি ছেড়ে গভীর সমুদ্রে যেতে হয়েছিল।

জেটি থেকে ১৯টি জাহাজ সমুদ্রে পাঠানোর দুদিন পর আজ সকাল থেকে সেগুলো ফিরিয়ে আনা শুরু করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

 

Comments