‘৩০ এপ্রিলের আগে ইরানে হামলা করবে না ইসরায়েল’

ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের পাসওভার উৎসব আগামী সোমবার সন্ধ্যা (২২ এপ্রিল) থেকে শুরু করে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে।

ইহুদিদের পাসওভার উৎসব শেষ হওয়ার আগে ইরানের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের হামলা চালানোর সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে।

আজ বৃহস্পতিবার ইসরায়েলের গণমাধ্যম টাইমস অব ইসরায়েল এবিসি নিউজের এক প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে।

এক মার্কিন কর্মকর্তা এবিসি নিউজকে এই তথ্য জানান। তবে তিনি স্বীকার করেন, এই সময়সীমা যেকোনো সময় বদলাতে পারে।

ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের পাসওভার উৎসব আগামী সোমবার সন্ধ্যা (২২ এপ্রিল) থেকে শুরু করে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে।

এবিসি নিউজ ইসরায়েলি সূত্রের বরাত দিয়ে আরও জানায়, গত শনিবার রাতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলার প্রতিক্রিয়ায় ইসরায়েল অন্তত দুইবার পাল্টা হামলা চালানোর সব ধরনের প্রস্তুতি নিলেও শেষ মুহূর্তে সে পরিকল্পনা বাতিল করে।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ইরানের হামলার পর তাৎক্ষণিকভাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে কথা বলেন। এই আলোচনার পরই তিনি আগে থেকে প্রস্তুত করে রাখা পাল্টা হামলার পরিকল্পনা বাতিল করেন বলে জানিয়েছে ইসরায়েলি টেলিভিশন নেটওয়ার্ক।

জো বাইডেনের সঙ্গে ফোন কলে নেতানিয়াহু। ছবি: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়/জিপিও
জো বাইডেনের সঙ্গে ফোন কলে নেতানিয়াহু। ছবি: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়/জিপিও

বুধবার কান পাবলিক ব্রডকাস্টার জানায়, ইসরায়েলের মন্ত্রিসভা ইরানের সম্ভাব্য হামলার মাত্রা অনুযায়ী বেশ কিছু প্রতিক্রিয়া-কৌশল আগে থেকেই অনুমোদন করে। ইরানের হামলার পর সেরকম একটি পাল্টা হামলা শুরুর প্রস্তুতি নেওয়া হলেও তা কার্যকর করা হয়নি।

এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, 'পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিক্রিয়া দেখানো হবে না। এখানে কূটনৈতিক কৌশল জয়ী হয়েছে। অবশ্যই প্রতিক্রিয়া দেখানো হবে, তবে তা আমাদের পরিকল্পনার সঙ্গে মিলবে না।'

এবিসির প্রতিবেদন মতে, পশ্চিমা কূটনীতিকরা ধারণা করেন, ইসরায়েল অবশ্যই ইরানকে জবাব দেবে। তবে এর মাত্রা কম হবে।

ওয়াইনেট নিউজ ওয়েবসাইট জানিয়েছে, ইসরায়েলি নেতা ও সামরিক বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তারা ইরানের বিরুদ্ধে সরাসরি হামলার পক্ষে আছেন। তবে রাজনৈতিক দল শাস'র নেতা আরিয়েহ দেরিসহ বেশ কয়েকজন নেতা হামলা চালিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে সংঘাত বাড়ানোর বিপক্ষে মত দেন।

বুধবার এক্সিওসের অপর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সোমবার যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভার বৈঠকে হামলা অনুমোদন পেলেও তা 'কারিগরি কারণে' বাস্তবায়ন করা হয়নি। 

ইরানের হামলার পর যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক। ছবি: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়/জিপিও
ইরানের হামলার পর যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক। ছবি: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়/জিপিও

আজ বৃহস্পতিবার আবারও যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ও উচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। এসব বৈঠকে ইরানের হামলার সম্ভাব্য জবাব, হামাসের সঙ্গে জিম্মি মুক্তি ও যুদ্ধবিরতির 'মৃতপ্রায়' আলোচনাকে নতুন জীবন দেওয়া ও উত্তরে হিজবুল্লাহর সঙ্গে যুদ্ধের বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা।

ইসরায়েলের বিমান বাহিনীর কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডোরান গ্যাভিশ বুধবার জানান, বিমানবাহিনী ইরানের কাছ থেকে ভবিষ্যৎ ও সম্ভাব্য হামলা মোকাবিলার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

Comments