জীবন কেন ফিলিস্তিনিদের নয়

ইসরায়েলি বোমায় ক্ষতবিক্ষত সাদা কাপড়ে মোড়ানো ফিলিস্তিনি শিশুর ছবি বা আত্মচিৎকারেও কি জাগবে না বিশ্ববিবেক? মানবিক বিপর্যয়, মানবাধিকারও কি নির্ধারিত হবে ধর্ম-বর্ণের আবরণে?
গত ১৫ অক্টোবর রাফাহ সীমান্তে ইসরায়েলি হামলার পর শিশুদের কোলে নিয়ে সরে যাচ্ছিলেন ফিলিস্তিনিরা। ছবি: এএফপি

নিয়ম করে যেমন সূর্য উঠে এবং অস্ত যায়, তেমনি নিয়ম করে তাদের জীবনেও বারবার নির্মমতা নেমে আসে। দশকের পর দশক ধরে তা চলছে। এক সময় তাদের জমি ছিল, মাথার উপরে ছাদ ছিল। সব দখল হয়ে গেছে। সর্বশেষ আশ্রয়টুকুও দখলের পথে।

পৃথিবী একটি নির্দয়-নিষ্ঠুর সময় অতিক্রম করছে। এমন সময় আগে কখনো আসেনি—বলা যাবে না। বেশ কয়েকবার এসেছে। প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, হিটলারের ইহুদি নিধন, ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম অধ্যায়। তবে, এবারের নিষ্ঠুরতা-নির্মমতা ও বর্বরতা একটু ব্যতিক্রমী। সমগ্র পৃথিবী এবারের বর্বরতা-নিষ্ঠুরতাকে সমর্থন ও পৃষ্ঠপোষকতা করছে, যা সম্ভবত কখনো এমনভাবে দৃশ্যমান হয়নি।

বলছি ফিলিস্তিনিদের কথা। বলছি বিশ্ব শক্তির সহযোগিতায় ইসরায়েল কর্তৃক সংগঠিত দখল-হত্যা ও নিষ্ঠুরতার কথা।

ফিলিস্তিনি সশস্ত্র সংগঠন হামাস ইসরায়েলে আক্রমণ করেছে, নিহত হয়েছে প্রায় এক হাজার ৩০০ মানুষ। প্রতিক্রিয়ায় ইসরায়েল হামলা চালিয়েছে ফিলিস্তিনের গাজায়। গত ১০-১১ দিনে ইসরায়েল কয়েক হাজার টন বোমা বর্ষণ করেছে, শিশু-নারী-যুবক-বৃদ্ধ হাজারো মানুষকে হত্যা করেছে, বাড়ি-ঘর গুঁড়িয়ে দিয়েছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, অ্যাম্বুলেন্স কিছুই রক্ষা পায়নি। তাদের ঘরবাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ জারি করেছে।

একসময় যেটা ফিলিস্তিনিদের ভূমি ছিল, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ থেকে বেঁচে যাওয়া ইহুদিরা ১৯৪৮ সালে সেখানে ইসরায়েল রাষ্ট্রের ঘোষণা দেয়। এরপর ১৯৬৭ সালের ছয় দিনের যুদ্ধে আরবদের পরাজিত করে ইসরায়েল বিস্তৃত এলাকা দখল করে নেয়।

১৭ বছর ধরে গাজা অবরুদ্ধ, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় খোলা কারাগার। ২০০৫ সালের নির্বাচনে ফিলিস্তিনিদের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন মাহমুদ আব্বাস। ২০০৪ সালে ইয়াসির আরাফাতের মৃত্যুর পর আল ফাত্তাহর নেতৃত্বে আসেন মাহমুদ আব্বাস। ২০০৬ সালের প্রাথমিক নির্বাচনে পরাজিত হয় ফাত্তাহ। সেই বছরই হামাস-ফাত্তাহ গৃহযুদ্ধে পরাজিত হয় ফাত্তাহ। ২০০৭ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে গাজায় সরকার গঠন করে হামাস।

গাজার এক পাশে ভূমধ্যসাগর, এক পাশে মিশর এবং দুই পাশে দখলদার ইসরায়েল।

৪১ কিলোমিটার লম্বা ও ১০ কিলোমিটার প্রস্থের গাজা উপত্যকায় প্রায় ২৩-২৪ লাখ ফিলিস্তিনির বসবাস, যাদের ৭০ শতাংশ দারিদ্র্যসীমার নিচে ও বেকারত্বের হার ৬৫ শতাংশ।

হামাস ক্ষমতায় আসার পর ২০০৭ সাল থেকে মিশর ও ইসরায়েল গাজা অবরুদ্ধ করে রেখেছে। এখানে কী ঢুকবে, আর কী ঢুকবে না—তা নিয়ন্ত্রণ করে মিশর ও ইসরায়েল।

ইসরায়েলি হামলায় আহত শিশুদের গাজা শহরের আল-শিফা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ছবিটি গত ১৫ অক্টোবর তোলা হয়েছে। ছবি: এএফপি

গাজায় কাজের সংকট, খাদ্য সংকট নিত্যদিনের। কিন্তু মাদকের সংকট নেই। ইসরায়েল গাজায় হরেক রকমের মাদক প্রবেশের সুযোগ তৈরি করে দেয়। উদ্দেশ্য ফিলিস্তিনিদের মাদকাসক্ত করে গড়ে তোলা।

মিশরের সঙ্গে দক্ষিণ গাজার সীমান্ত রাফাহ এখন বন্ধ। এই সীমান্ত খোলার আলোচনা চলছে। হাজারো ফিলিস্তিনি রাফাহ সীমান্তে জড়ো হয়েছে।

এ কথা সত্য যে হামাস ইসরায়েলের ভেতরে ঢুকে নির্মমতা চালিয়েছে। প্রশ্ন এসেছে—হামাস কেন ইসরায়েলে আক্রমণ করল? কারণ হতে পারে দুটি।

প্রথমত, যেসব দেশের অবস্থান ফিলিস্তিনিদের পক্ষে ও ইসরায়েলের বিপক্ষে ছিল, তারাও ক্রমান্বয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা সম্পর্ক স্বাভাবিক করছে। বিশেষ করে আরব বিশ্ব, সৌদি আরব যার নেতৃত্বে। ফিলিস্তিনিরা বা হামাস মনে করছে, তাদের স্বার্থ এখন আর কেউ দেখছে না। হামাস ইসরায়েলে হামলা করে বুঝিয়ে দিলো যে, ফিলিস্তিনিদের বাদ দিয়ে কোনো শান্তি প্রক্রিয়া এগিয়ে নেওয়া সম্ভব না।

দ্বিতীয়ত, ইসরায়েল প্রতিদিনই একটু একটু করে ফিলিস্তিনিদের জায়গা দখল করে ইহুদি বসতি স্থাপন করছে। ফিলিস্তিনিদের নিপীড়ন করছে, হত্যা করছে। ইসরায়েল সরকার তার নাগরিকদের নিশ্চয়তা দিয়েছিল যে, যা কিছুই ঘটুক না কেন, তারা নিরাপদ। হামাস আক্রমণ করে বোঝাতে চাইল ইসরায়েলি জনগণও নিরাপদ নয়।

হামাসের আক্রমণ নিয়ে ব্যাখ্যা বা বিশ্লেষণ চলছে। সেই ব্যাখ্যা বা বিশ্লেষণের প্রায় সবই পক্ষপাতদুষ্ট। পৃথিবীর সামরিক ও অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলো পক্ষপাতমূলক আচরণ করছে, একই রকম আচরণ করছে তাদের গণমাধ্যমও।

ইসরায়েলি বর্বরতাকে জাস্টিফাই করে, তারা শুধু সামনে আনছে হামাসের নির্মমতা।

ইসরায়েলের সর্বাত্মক অবরোধে গাজায় পানি নেই, জ্বালানি নেই, ওষুধ নেই। কমপক্ষে ১৫টি হাসপাতাল বোমা ফেলে ধ্বংস করে দিয়েছে ইসরায়েল। শিশুখাদ্য তো বটেই, সামগ্রিকভাবেই খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে গাজায়। বোমাবর্ষণ চলছে। নৌ ও স্থল আক্রমণ আরও তীব্র করার ঘোষণা দিয়ে উত্তরাঞ্চলের গাজাবাসীকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ জারি করেছে ইসরায়েল।

সবাই জানে গাজার উত্তরের ফিলিস্তিনিদের দক্ষিণে চলে যাওয়ার বিষয়টি অবাস্তব, অসম্ভব। এমনিতেই গাজা ঘনবসতিপূর্ণ। উত্তরের ১০-১২ লাখ গাজাবাসীর ঠাঁই হবে না দক্ষিণে। ইসরায়েল মূলত দুটি কারণে উত্তর গাজার ফিলিস্তিনিদের সরে যেতে বলেছে। এর মাধ্যমে বেসামরিক ফিলিস্তিনি হত্যার বিষয়টি তারা জায়েজ করতে চায়। বলবে, আগেই তো সরে যেতে বলেছিলাম। সরে না যাওয়ায় তারা মারা গেছে। আর দ্বিতীয় বা প্রধান কারণ, গাজার উত্তর অংশে ইসরায়েল দখল প্রতিষ্ঠা করতে চায়। গাজার উত্তর অংশে ফিলিস্তিনিদের আর কখনো আসতে দেবে না ইসরায়েল।

ইসরায়েলের নিষ্ঠুরতা কেউ দেখতে চাইছে না। যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলের সবচেয়ে বড় সমর্থক, পৃষ্ঠপোষক। একই নীতি ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়ার। আরব বিশ্বের নীতি নির্ধারণে আমেরিকাই শেষ কথা। ইরান ছাড়া অন্য প্রায় সবাই ইসরায়েলের সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপনে ব্যস্ত। সৌদি আরবের ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের আলোচনা স্থগিত ও ইসরায়েলি বর্বরতার ১১ দিন পর অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশনের (ওআইসি) বৈঠক আয়োজনের সিদ্ধান্ত, লোক দেখানো ছাড়া আর কিছু নয়।

ইসরায়েলি হামলার পর নিজ বাড়ি ছেড়ে শিশু সন্তানদের নিয়ে চলে যাচ্ছেন ফিলিস্তিনি নারীরা। ছবিটি গত ১১ অক্টোবরের। ছবি: এএফপি

জাতিসংঘের কোনো ভূমিকা নেই মূলত ভেটো ক্ষমতাসম্পন্ন যুক্তরাষ্ট্রের কারণে। জাতিসংঘের পর বড় সংগঠন ৫৭টি দেশের জোট ওআইসির কোনো কার্যকর ভূমিকা নেই। ইসরায়েলি নিষ্ঠুরতা বন্ধে কোনো কার্যকর উদ্যোগ তো দূরের কথা, জোরালো কোনো শব্দও উচ্চারণ করছে না তারা।

ইসরায়েল গঠনের সময় থেকেই পশ্চিমা রাষ্ট্রগুলো বলেছে, এই রাষ্ট্রকে রক্ষা করার জন্য তারা তাদের যা করণীয়, সবই করবে। সেই নীতিতে তারা অটল। ফলে, ইসরায়েল কার ওপর হামলা করল, কত নারী-শিশুসহ বেসামরিক মানুষ হত্যা করল, তারা সেই হিসাব দেখে না। তারা শুধু দেখে, ইসরায়েলে কে আক্রমণ করল এবং কতটা ক্ষতি করল। পৃথিবীর প্রায় সব গণমাধ্যমও এমন নীতি অনুসরণ করছে।

পৃথিবীর মানবাধিকার একরৈখিক। পশ্চিমারা যেটাকে ঠিক মনে করবে, সেটাই মানবাধিকার। পশ্চিমারা যেটাকে ঠিক মনে করবে না, সেটা মানবাধিকার না। যেখানে হামাসের হামলা 'সন্ত্রাস', আর ইসরায়েলের হত্যা-দখল 'আত্মরক্ষার অধিকার'।

ইসরায়েলের এবারের নির্মমতার একমাত্র জোরালো কণ্ঠস্বর ইরান।

ইরান লেবাননের হিজবুল্লাহকে দিয়ে ইসরায়েলে আক্রমণ করাতে পারে বা নিজে আক্রমণ করতে পারে, এই আশঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্র দুটি বিমানবাহী রণতরী পাঠিয়েছে ভূমধ্য সাগরে। অস্ত্র পাঠানো শুরু করেছে ইসরায়েলে। অস্ত্রসহ সব রকম সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাজ্য। ফলে গাজায় হামলার ক্ষেত্রে কোনো দ্বিধা রাখতে হচ্ছে না ইসরায়েলকে। ইসরায়েলের সামরিক শক্তির সঙ্গে হামাসের কোনো তুলনাই চলে না। ইসরায়েল বহুগুণ শক্তিশালী। কিন্তু পশ্চিম এমনভাবে দেখাতে চাইছে যে, ইসরায়েল পৃথিবীর বিশাল সামরিক শক্তিধর হামাসের সঙ্গে যুদ্ধ করছে। সেকারণে যুদ্ধ জাহাজ, অস্ত্র দিয়ে তারা সহায়তা করছে ইসরায়েলকে।

ফিলিস্তিনিদের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে গেছে। যতটুকু আছে, তাও না রাখার নীতি নিয়ে এগোচ্ছে ইসরায়েল। ধারণা করা হচ্ছে, ইসরায়েল এক সময় গাজার ফিলিস্তিনিদের বাধ্য করবে মিশরের ভেতরে ঠেলে দিতে। তারা মিশরে শরণার্থী হিসেবেই জীবনযাপন করবে।

পশ্চিম তীরে যে ফিলিস্তিনিরা আছে, তাদের জায়গাও ধীরে ধীরে দখল করে নিচ্ছে ইসরায়েল। ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস সেখানে অবস্থান করলেও তার কোনো কার্যক্রম নেই। তিনি যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের সঙ্গে এক ধরনের শলাপরামর্শ করেই ক্ষমতায় আছেন। জেরুজালেমসহ পশ্চিম তীর ইসরায়েলের দখলেই আছে।

পশ্চিম তীরের ফিলিস্তিনিদের জর্ডানে চলে যেতে বাধ্য করা হবে এবং কিছুসংখ্যককে ঠেলে দেওয়া হবে লেবাননের দিকে। এভাবেই ফিলিস্তিনিদের মিশর, জর্ডান ও লেবাননে ঠেলে দেওয়ার মাধ্যমে তাদের সম্পূর্ণ ভূমি ইসরায়েল দখল করে নেবে। এমন বিশ্লেষণ বা ধারণা ঘটনাক্রমের আলোকে এখন আর অমূলক নয়।

ইসরায়েলি বোমায় ক্ষতবিক্ষত সাদা কাপড়ে মোড়ানো ফিলিস্তিনি শিশুর ছবি বা আর্তচিৎকারেও কি জাগবে না বিশ্ববিবেক? মানবিক বিপর্যয়, মানবাধিকারও কি নির্ধারিত হবে ধর্ম-বর্ণের আবরণে? সত্যি কি জীবন ফিলিস্তিনিদের নয়?

Comments

The Daily Star  | English

Govt may go for quota reforms

The government is considering a “logical reform” in the quota system in the public service, but it will not take any initiative to that end or give any assurances until the matter is resolved by the Supreme Court.

1d ago